বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০২৪
৬ আষাঢ় ১৪৩১
হত্যার ছবি কাউকে পাঠানো হয়েছে কিনা, তদন্ত হচ্ছে
প্রকাশ: বুধবার, ১২ জুন, ২০২৪, ১:২৯ এএম |



এমপি আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যাকা-ের ছবি ঝিনাইদহের স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের কাছে পাঠানোর যে খবর বেরিয়েছে, তা তদন্ত করে দেখার কথা বলেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের (গোয়েন্দা) অতিরিক্ত কমিশনার হারুন অর রশীদ।
তিনি বলেছেন, “হত্যাকা- সংঘটিত হয়েছে ভারতের মাটিতে। সেখান থেকে মোটা দাগে যে সকল অপরাধী ছিল, সবাই কিন্তু বাংলাদেশি। হত্যার পর তারা বাংলাদেশে এসেছে। আসার পর তারা হত্যাকা-ের ছবি শেয়ার করেছে কিনা, এটা আমরা তদন্ত করছি।
“এসব ছবি শেয়ার করে তারা কারো কাছ থেকে আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছে কিনা এবং কাদের কাছ থেকে আর্থিকভাবে লাভবান হয়েছে- এসব কিছুই আমরা তদন্ত করে দেখছি। আপনারা (সাংবাদিকরা) যেগুলো বলছেন, এগুলো আমরাও শুনেছি, তদন্ত করছি।”
ঢাকার মিন্টো রোডে ডিবি কার্যালয়ে মঙ্গলবার দুপুরে সাংবাদিকের সঙ্গে কথা বলছিলেন হারুন অর রশীদ।
আনার হত্যাকা-ে জড়িত সন্দেহে ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক কাজী কামাল আহমেদ ওরফে বাবুকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।
বাবুসহ এর আগে গ্রেপ্তার চরমপন্থি নেতা আমানুল্লা সাঈদ ওরফে শিমুল ভুঁইয়া, তার ভাতিজা তানভীর ভূঁইয়া ও সেলেস্টি রহমানের মোবাইল ফোনের ফরেনসিক পরীক্ষারও নির্দেশ দিয়েছে আদালত।
ফোনগুলোর ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য ডিবির আবেদনে বলা হয়, আনারকে খুনের পর শিমুল, বাবু, তানভীর ও সেলেস্টি নিজেদের মধ্যে হোয়াটসঅ্যাপে বিভিন্ন রকম তথ্য আদান-প্রদান করেছেন। এ ছাড়া আসামিদের হোয়াটসঅ্যাপ নম্বরে এবং মোবাইলে থাকা ছবি, ভিডিওসহ অপহরণ ও খুন-সংক্রান্ত কোনো তথ্য মুছে ফেলা হয়েছে কি না, সেটি জানা প্রয়োজন।
হারুন অর রশীদ বলেন, “শিমুল ভুঁইয়া ওরফে আমানউল্লাহ আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে। অন্য দুজনও (তানভীর ও সেলেস্টি) দিয়েছে। সকল তথ্য-উপাত্ত বিচার বিশ্লেষণ করে আমরা মনে করেছি যে ঝিনাইদহ আওয়ামী লীগ নেতা বাবুকে জিজ্ঞাসাবাদ প্রয়োজন। সেই পরিপ্রেক্ষিতে আমরা তাকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে এনেছি। তার রিমান্ড চলছে, তাকে আমরা জিজ্ঞাসাবাদ করছি।”
গত ১১ মে চিকিৎসার জন্য ভারতে গিয়ে নিখোঁজ হন ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনার। তার বন্ধু স্বর্ণ ব্যবসায়ী গোপাল বিশ্বাস কলকাতায় জিডি করার পর দুই দেশে তদন্ত শুরু হয়। এরপর ২২ মে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, এমপি আনারকে কলকাতার এক বাড়িতে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে।
এরপর ভারতীয় পুলিশের দেওয়া তথ্যে বাংলাদেশের পুলিশ শিমুল ভুঁইয়া, তানভীর ভুঁইয়া ও সেলেস্টি রহমানকে গ্রেপ্তার করে। তারা ইতোমধ্যে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।
কিন্তু হত্যাকা-ের ‘হোতা’ আখতারুজ্জামান শাহীন নেপালের কাঠমান্ডু হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে চলে গেছেন বলে পুলিশের ভাষ্য। তার ব্যবহৃত দুটো গাড়ি জব্দের কথাও জানিয়েছেন অতিরিক্ত কমিশনার হারুন।
অন্যদিকে কলকাতার পুলিশ জিহাদ হাওলাদার নামে এক কসাইকে গ্রেপ্তার করেছে। আর শাহীনের সহকারী সিয়াম হোসেন কাঠমান্ডুতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর তাকে ভারতের কাছে হস্তান্তর করে নেপালের পুলিশ।
সিয়ামকে জিজ্ঞাসাবাদে কলকাতার সিআইডি এই হত্যাকা- নিয়ে বড় ধরনের তথ্য পেয়েছে বলে পশ্চিমবঙ্গের সংবাদমাধ্যমে বলা হয়েছে। সিয়ামকে নিয়ে ভাঙড়ের বিজয়গঞ্জ বাজার থানা এলাকার কৃষ্ণমাটিতে বাগজোলা খালে নামে কলকাতার সিআইডি। পরে একটি ঝোপের পাশ থেকে বেশ কিছু হাড়গোড় উদ্ধার করা হয়।
হারুন অর রশীদ বলেন, “মূল যে পরিকল্পনাকারী আখতারুজ্জামান বাংলাদেশ থেকে দিল্লি, কাঠমান্ডু, দুবাই হয়ে যুক্তরাষ্ট্রে চলে গেছেন। যেহেতু তার যুক্তরাষ্ট্রের পাসপোর্ট (নাগরিকত্ব) রয়েছে। তাকে আমরা ধরতে না পারলেও মোটামুটি বাকি আসামিদের সম্পর্কে আমরা তথ্য পেয়েছি, অনেককে আমরা গ্রেপ্তারও করেছি। ভারতেও একজন গ্রেপ্তার হয়েছেন জিহাদ। আরেকজন (সিয়াম) ছিলেন নেপালে। আমাদের পুলিশ সদর দপ্তরের এনসিবির মাধ্যমে যোগাযোগ করলে কাঠমান্ডুর পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। সেই সিয়াম এখন ভারতের পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।
“এই মামলার মূল পার্টটা ভারতে। যেহেতু আপনারা জানেন আনারকে হত্যা করে পৈশাচিক কায়দায় গুম করার উদ্দেশে, ঠা-া মাথায় আনারের শরীরের বিভিন্ন অংশ বিভিন্ন জায়গায় ফেলে দেওয়ার যে মূল কাজটি সেটি করেছে সিয়াম। আমরা শুনেছি তারা তাকে নিয়ে কিছু অংশ (দেহাংশ) উদ্ধারও করেছে।”
কলকাতার যে ভবনটিতে আনারকে হত্যা করা হয়, সেই সঞ্জীভা গার্ডেনসের সেপটিক ট্যাংকে পাওয়া মাংসের টুকরো এবং বাগজোলা খালের পাশে পাওয়া হাড় মানুষের এবং একজন পুরুষের বলে ফরেনসিক পরীক্ষায় নিশ্চিত হয়েছে কলকাতার সিআইডি। এখন সেগুলো আনারের কি না, সে বিষয়ে নিশ্চিত হওয়ার জন্য ডিএনএ পরীক্ষার জন্য আদালতের অনুমতি চাইবেন তদন্ত কর্মকর্তা।
ডিএনএ পরীক্ষার জন্য আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিনসহ স্বজনরা কলকাতায় যাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন।
এ বিষয়ে মঙ্গলবার এমপি আনারের ব্যক্তিগত সহকারী আব্দুর রউফ বলেন, “এর আগে ডিবি আমাদের বলেছিল ভারতে মাংসের টুকরোগুলোর ফরেনসিক পরীক্ষা শেষ হলে তারা আমাদের জানাবে, এরপরে আমরা উনার মেয়েসহ ডিএনএ টেস্টের জন্য কলকাতায় যাব। ডিবি থেকে ফরেনসিক রিপোর্টের বিষয়ে আমাদের এখনও কিছু জানায়নি।”
তবে সংবাদমাধ্যমে আসা খবরের বরাতে আব্দুর রউফ বলেন, “আমরা পত্রিকায় দেখছি যে উদ্ধার করা মাংসের টুকরোগুলোকে তারা মানুষের এবং পুরুষ মানুষের দেহাংশ হিসেবে শনাক্ত করেছে। তারা মূলত সঞ্জীভা গার্ডেন থেকে উদ্ধার করা মাংসের টুকরোগুলোর ফরেনসিক টেস্ট সম্পন্ন করেছে বলে আমরা জেনেছি। “এখন বাগজোলা খাল থেকে যে হাড়গোড়গুলো উদ্ধার করা হয়েছে সেটির ফরেনসিক টেস্ট সম্পন্ন হলে তারা আমাদের ডাকবে বলে আমরা মনে করছি। তবে এ বিষয়ে অফিসিয়ালি কেউ (ডিবি) কিছু জানায়নি।”














সর্বশেষ সংবাদ
দাউদকান্দি টোলপ্লাজায় ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে ঢাকামুখী চামড়াবাহী ট্রাক
কুমিল্লায় ঈদের প্রধান জামাত সকাল ৮টায়
‘লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখর আরাফাতের ময়দান
বেশি ভাড়া রাখায় উপকূল পরিবহনকে জরিমানা
কুমিল্লায় সড়কে ঝরলো ৫ প্রাণ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
দাউদকান্দি টোলপ্লাজায় ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে ঢাকামুখী চামড়াবাহী ট্রাক
কুমিল্লায় ঈদের প্রধান জামাত সকাল ৮টায়
বেশি ভাড়া রাখায় উপকূল পরিবহনকে জরিমানা
ত্যাগের মহিমায় উদ্ভাসিত হোক
কুমিল্লায় সড়কে ঝরলো ৫ প্রাণ
Follow Us
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩, +৮৮ ০১৭১১ ৯৯৭৯৬৯, +৮৮ ০১৯৭৯ ১৫২৪৪৩, ই মেইল: [email protected]
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত, কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০২২ | Developed By: i2soft