সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪
৯ বৈশাখ ১৪৩১
লিবিয়ায় জিম্মি চট্টগ্রামের ৪ যুবক, পাঠানো হচ্ছে নির্যাতনের ভিডিও
প্রকাশ: শনিবার, ৩০ মার্চ, ২০২৪, ১:২৮ এএম |


 

 

চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার চার যুবক ভাগ্য বদলাতে ফেব্রুয়ারিতে পাড়ি জমিয়েছিলেন লিবিয়ায়। এখন সেখানে তারা দালালদের খপ্পরে পড়েছেন। শিকার হচ্ছেন নির্মম নির্যাতনের। নির্যাতনের ওই ভিডিও পরিবারের কাছে পাঠিয়ে মুক্তিপণ হিসেবে প্রত্যেকের জন্য দশ লাখ করে মোট ৪০ লাখ টাকা দাবি করেছে সংঘবদ্ধ একটি চক্র।

অপহরণ চক্রের ফাঁদে আটকে পড়া চার যুবক হলো, চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের মধ্যম গহিরা বাচা মিয়া মাঝিরঘাট এলাকার নুরুল আলমের ছেলে মো. ওয়াসিম (২২), একই এলাকার মৃত মোজাহের মিয়ার ছেলে বোরহান উদ্দিন (১৯), আবদুর রহিমের ছেলে জাবেদুর রহিম (১৯) ও জেবল হোসেনের ছেলে নাঈম উদ্দিন (২০)।

এদিকে, মুক্তিপণ দাবি করে নির্যাতনের ভিডিও ফুটেজ পাঠানোর ঘটনা বুধবার (২৭ মার্চ) বিকালে অভিভাবকরা আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এবং আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) লিখিতভাবে জানিয়েছেন।

অপহৃতদের স্বজনরা জানান, রায়পুর ইউনিয়নের গহিরা এলাকার মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে জহিরুল ইসলামের মাধ্যমে এ চার জনকে গত ফেব্রুয়ারিতে লিবিয়ায় পাঠানো হয়। এজন্য জনপ্রতি ৪ লাখ ৩০ হাজার টাকা করে নেয় জহিরুল। বলেছিল লিবিয়ার হাসপাতালে তাদের মোটা অঙ্কের বেতনের চাকরি দেবে। ১৬ ফেব্রুয়ারি তারা লিবিয়ার উদ্দেশে বাড়ি থেকে বের হন।

বোরহান উদ্দিনের ভাই সাহাব উদ্দিন বলেন, ‘আমার ভাইসহ চার জনকে জহিরুল ইসলাম ট্যুরিস্ট ভিসায় প্রথমে দুবাই নিয়ে যায়। সেখানে জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর থানার বাসিন্দা মো. মিজান নামে এক লোকের হাতে তাদের নাকি তুলে দেওয়া হয়। মিজান চার জনের পাসপোর্ট নিজের কাছে নিয়ে নেন। সাত দিন পর দুবাই থেকে মিসর হয়ে লিবিয়ায় নিয়ে মিজান অন্য দালালের হাতে এ চার জনকে বিক্রি করে দেয় বলে শুনেছি। তবে এর পেছনে জহিরুলের হাত রয়েছে। সেই ওই চক্রের সদস্য। তাকে ধরলে এ ঘটনা বের হয়ে আসবে।’

লিবিয়ায় জিম্মি জাবেদুর রহিমের বাবা আবদুর রহিম বলেন, ‘আমার ছেলেসহ চার জনকে আটকে রেখে নির্মম নির্যাতন চালানো হচ্ছে। মঙ্গলবার আমাদের মোবাইলে নির্যাতনের ভিডিও ফুটেজ ও অডিও বার্তা পাঠায় দালাল চক্রের সদস্যরা। ভিডিও বার্তায় জনপ্রতি ১০ লাখ টাকা করে মুক্তিপণ দাবি করেছে। টাকা দেওয়ার জন্য বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংকের চকরিয়া শাখার একটি হিসাব নম্বরও দিয়েছে তারা। মুক্তিপণ দ্রুত না দিলে তাদের মেরে ফেলবে বলেছে। আমার কাছে এত টাকা নেই। এত টাকা জোগাড় করাও সম্ভব নয়। এ কারণে আমরা চার পরিবার এক হয়ে আনোয়ারার ইউএনও এবং থানার ওসিকে লিখিতভাবে অবহিত করেছি।’

এ বিষয়ে আনোয়ারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. ইশতিয়াক ইমন বলেছেন, ‘লিবিয়ায় চার যুবককে মুক্তিপণের জন্য জিম্মি করে রাখা হয়েছে, এ ধরনের একটি অভিযোগ আমি পেয়েছি। স্বজনদের পক্ষ থেকে লিখিতভাবে এই অভিযোগ জানানো হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

 

 

 












সর্বশেষ সংবাদ
মনোহরগঞ্জ উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার নুরজাহান রহমানের বদলী জনিত বিদায়ী সংবর্ধনা
সদরে তিন পদেই একক প্রার্থী
কুমিল্লায় সিএনজি চালককে হত্যায় দুই যুবকের মৃত্যুদণ্ড
হাসপাতালের শয্যা খালি রাখার নির্দেশ
বরুড়া বাল্য বিয়ে বন্ধ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
গোপনে দেখা করতে গিয়ে ধরা পড়ে চম্পট প্রেমিক, প্রেমিকার আত্মহত্যা!
কুমিল্লা সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিন পদেই একক প্রার্থী, বিনা ভোটে নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন তারা
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আরও বাড়তে পারে:স্বাস্থ্যমন্ত্রী
দাম কমানোর ২৪ ঘণ্টা ব্যবধানে ফের বাড়ল স্বর্ণের দাম
উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী গোলাম সারওয়ারের সংবাদ সম্মেলন
Follow Us
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩, +৮৮ ০১৭১১ ৯৯৭৯৬৯, +৮৮ ০১৯৭৯ ১৫২৪৪৩, ই মেইল: [email protected]
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত, কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০২২ | Developed By: i2soft