বৃহস্পতিবার ১ ডিসেম্বর ২০২২
১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
সেবা অনুযায়ী বেসরকারি হাসপাতালের ফি নির্ধারণ হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ৬ অক্টোবর, ২০২২, ৬:১৬ পিএম |

মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বেসরকারি হাসপাতালের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বেসরকারি হাসপাতালে ফি নির্ধারণী সভায় বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক

মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বেসরকারি হাসপাতালের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বেসরকারি হাসপাতালে ফি নির্ধারণী সভায় বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক।
স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, বেসরকারি মেডিকেল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর একেকটির জন্য একেক রকম ফি থাকায় মানুষের চিকিৎসার ব্যয়ভার বেড়ে গেছে। আমরা এই বৈষম্য দূর করতে চাই। এজন্য হাসপাতালগুলোকে চিকিৎসাসেবার মান অনুযায়ী শ্রেণিভুক্তকরণসহ সঠিক ফি নির্ধারণ করে দেওয়া হবে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বেসরকারি হাসপাতালের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বেসরকারি হাসপাতালে ফি নির্ধারণী সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বেসরকারি হাসপাতালের ফি নির্ধারণ করা নিয়ে সভা করেছি। হাসপাতালগুলোকে ক্যাটেগরাইজড করে ভাগ করে দিচ্ছি। মান অনুযায়ী এ, বি, সি, ক্যাটেগরিতে ভাগ করা হবে। যে হাসপাতালের যে সক্ষমতা আছে সেই সক্ষমতার বাইরে ঐ হাসপাতাল চিকিৎসা দিতে পারবে না।

তিনি বলেন, এক হাসপাতালে ফি ১০ হাজার টাকা হলে, অন্য হাসপাতালে বিল ওঠে ৫০ হাজার টাকা বা ১ লাখ টাকা। এতে দেশের সাধারণ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এটি চলতে পারে না। এছাড়া যে হাসপাতালের সিজার করার বা হার্টের চিকিৎসা করার যন্ত্রপাতি নেই, সেখানে ঐ চিকিৎসা দেওয়া মানে রোগীর জীবন সংকটাপন্ন করা। এ জন্যই মান অনুযায়ী শ্রেণিভুক্তকরণসহ সঠিক ফি নির্ধারণের কাজ চলছে।

এর আগে সকালে অন্য একটি বৈঠকে দেশের স্বাস্থ্যসেবায় মানোন্নয়নে প্রাইমারি স্বাস্থ্যসেবা বৃদ্ধির ওপর জোর দিতে সভায় উপস্থিত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের তাগিদ দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

দেশের গ্রামাঞ্চলের পল্লী চিকিৎসকরা যত্রতত্র এবং অপ্রয়োজনে এন্টিবায়োটিক বা গ্যাস্টিকের ওষুধ লিখে গ্রামের সাধারণ মানুষের ক্ষতি করছেন উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, কোনোরকম সরকারি অনুমোদন না নিয়েই গ্রামে অগণিত চিকিৎসক তৈরি হয়ে যাচ্ছে। এটি এভাবে চলতে থাকলে চিকিৎসার পরিবর্তে ভুল চিকিৎসায় ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশংকাই বেশি থাকবে। তাই অবিলম্বে সরকারি নিবন্ধন ছাড়া ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার বন্ধ করার পাশাপাশি সরকারি অনুমোদন ও সার্টিফিকেটবিহীন গ্রাম্য চিকিৎসকদের চিকিৎসা বন্ধ করে দেওয়া হবে।

সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন- স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব ড. মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ বি এম খুরশীদ আলম, অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবীরসহ বিভিন্ন বেসরকারি মেডিকেল কলেজের প্রতিনিধিরা ও অন্যান্য নেতারা।












সর্বশেষ সংবাদ
এবার এডিসিসহ পুলিশের ৬ কর্মকর্তা বদলি
১০ ডিসেম্বর নয়াপল্টনেই বিএনপির গণসমাবেশ
দেবিদ্বারে ইউএনওকে বিদায় সংবর্ধনা
নক আউটে মুখোমুখি আর্জেন্টিনা-অস্ট্রেলিয়া, ফ্রান্স-পোল্যান্ড
পাকিস্তানে কয়লা খনিতে বিস্ফোরণে ৯ শ্রমিকের মৃত্যু
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
কাশিমপুর কারাগারে একজনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর
৫৬ লাখ ভিডিও ডিলিট করলো ইউটিউব
শিশু আয়াতের মরদেহের খণ্ডিত অংশ উদ্ধার
হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে কুবির সাবেক শিক্ষার্থীর মৃত্যু
১০ ডিসেম্বর নয়াপল্টনেই বিএনপির গণসমাবেশ
Follow Us
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩, +৮৮ ০১৭১১ ৯৯৭৯৬৯, +৮৮ ০১৯৭৯ ১৫২৪৪৩, ই মেইল: [email protected]
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত, কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০২২ | Developed By: i2soft