পত্রিকা আপডেট-১২:৩০ ।। সর্বশেষ খবর আপডেট ২৪ ঘন্টা
 
Publish Date: 30 Nov -0001 00:00:00

মিলাদ, কিয়ামপন্থীদের অপপ্রচারণামূলক সংবাদ সম্মেলন :জেলা উলামা পরিষদের বক্তব্য
Share
গত ৭ মে দৈনিক ইনকিলাবসহ কুমিল্লার আঞ্চলিক একাধিক পত্রিকায় সোনাকান্দা মাদরাসার মুহাদ্দিস মাও: মুতালেব হুসাইন সালেহীর মিলাদ কিয়াম বিরোীদের বাহাসের প্রতিশ্রতি ভঙ্গের অভিযোগ শিরেনামে সংবাদ সম্মেলনের বক্তব্য আমাদের দৃষ্টি গোচর হয়েছে। কুমিল্লা জেলা ওলামা পরিষদের সেক্রেটারি শামছুল ইসলাম জিলানী স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সোনাকান্দা মাদরাসার মুহাদ্দিস ও শিক্ষকগণের পক্ষ থেকে এমন অসত্য অভিযোগ দেখে আমরা নিতান্তই হতবাক হয়েছি। মূল ঘটনা হল মিলাদ কিয়াম, ঈদে মীলাদুন্নবী ও জানাজার পর সম্মিলিত দোয়া রাসূল (সা:) সাহাবায়ে কেরাম, আইম্মায়ে মুজতাহিদসহ ইসলামের সোনালী যুগে কোন ভাবেই প্রমাণিত নয়। যা কুরআন, সুন্নাহ, ইজমা, কিয়াস পরিপন্থি বিদআত আমল। কুরআন হাদীসের কোন দলীল না থাকা সত্ত্বেও একটি মহল বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিলে কুরআন হাদীসকে বিকৃত করে উস্কানীমূলক বক্তব্য দিয়ে আসছে। অথচ এ ধরনের বক্তব্য কোনভাবেই নবী (সা:) এর আদর্শ হতে পারে না। সোনাকান্দা মাদরাসার মুহাদ্দিস মাও: মুতালেব সালেহীর এ জাতীয় এক বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে উনার সাথে মোবাইলে আলোচনা হয়। এক পর্যায়ে বাহাসের কথা আলোচনা হয়। এ ব্যাপারে মুরাদনগর উপজেলা জামে মসজিদে উভয় পক্ষ বসে, বিষয়বস্তু, বাহাসের স্থান ও সভাপতি নির্ধারণ করেন যা স্বাক্ষরসহ লিখিত আকারে উভয় পক্ষের কাছে রয়েছে। তবে বাহাসের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বিচারক নির্ধারণ এবং তারিখের ব্যাপারে পরবর্তীতে আলোচনা করে ফয়সালা হবে মর্মে উপস্থিত সকলে একমত হন। ৩০ এপ্রিল ১২ইং উপজেলা চেয়ারম্যান কার্যালয়ে ১ লক্ষ টাকা নিয়ে উপস্থিত হওয়ার ব্যাপারে বৈঠকে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। পরবর্তীতে মুরাদনগরে বাহাস অনুষ্ঠানে কিছু জটিলতা দেখা দেয়। যা সোনাকান্দা মাদরাসার সকলে পুরোপুরি অবগত আছেন। যার কারণে বাহাসের স্থান অন্যত্র নির্ধারণ করতে মাও: মুতালেব সাহেব কে মোবাইলে বলা হয়। বাহাস অনুষ্ঠান প্রাথমিক আলোচনাধীন থাকা অবস্থায় এবং এ সর্ম্পকীয় জটিলতার ব্যাপারে ওয়াকিব হাল থাকা সত্ত্বেও সংবাদ সম্মেলনে অঙ্গীকার ভঙ্গের অভিযোগ দেখে আমরা হতবাক হই। যা অত্যন্ত বেদনা দায়ক এবং সোনাকান্দা কামিল মাদরাসার কোন শিক্ষক থেকে জাতি কখনো এ ধরনের আচরণ আশা করে না। যদিও বাহাস নিয়ে অতীতে এ জাতীয় মিথ্যাচারের সম্মুখীন আমাদের অনেকবার হতে হয়েছে। কুমিল্লা মুন্সেফবাড়ি জামে মসজিদের যথাসময়ে যথাস্থানে উপস্থিত না হয়ে মিছিল করে পত্রিকায় ডাহা মিথ্যা সংবাদ প্রচার করার কথা কুমিল্লার মুসলিম জনতা এখনো ভুলে যায়নি। মাও: ওলীপুর সাহেবের সাথে বিভিন্ন বাহাসে নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও প্রশাসনের উচ্চপদস্থ লোকদের স্বাক্ষর সম্বলিত বাহাসের রায় ও ক্যাসেট বিদ্যমান থাকা সত্ত্বেও বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিলে ও পত্র পত্রিকায় মিথ্যা প্রচারণা করা কোন সুস্থ বিবেক সম্পন্ন ব্যক্তি এবং যার অন্তরে আল্লাহ ও আখেরাতের ভয় আছে সে কখনো এ ধরনের কাজ করতে পারে না। এ বাহাস নিয়ে সতর্কতার সাথে অগ্রসর হওয়ার ব্যাপারে বার বার বৈঠক হয়। অবশেষে আমাদের প্রতিপক্ষ ভাইয়েরা নিজেদের স্বভাই বাস্তবায়ন করে দেখালেন। এভাবে জাতির সমস্যা সমাধানের আশা করা যায় না। বরং সমাজ সংঘাতমুখী হয়। তাই ভবিষ্যতে এ জাতীয় বিষয়গুলো জন সম্মুখে ও পত্র পত্রিকায় প্রকাশ করে সাধারণ মুসলমানদের মাঝে বিভ্রান্তি না ছড়ানোর জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আহবান জানাচ্ছি। তবে সব নিয়মকানুনু সামনে রেখে প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে এসব বিষয়ে আলোচনায় বসতে আমরা বরাবরই প্রস্তুত আছি।-প্রেস বিজ্ঞপ্তি
 
Total Reader : Hit Counter by Digits || The Site Design Mantain & Developed by RiverSoftBD