পত্রিকা আপডেট-১২:৩০ ।। সর্বশেষ খবর আপডেট ২৪ ঘন্টা
 
Publish Date: 30 Nov -0001 00:00:00

কুমিল্লা জিলা স্কুল : দেশের এক অনন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান
Share
কুমিল্লা জিলা স্কুল সারাদেশের মধ্যে তৃতীয়। কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ড প্রথম এবং দেশের মোট ৩১৭টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করেছে। ধারাবাহিক সাফল্যের মধ্যে দিয়ে কুমিল্লা জিলা স্কুল দেশের এক অনন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে পরিণত হয়েছে। কুমিল্লা জিলা স্কুল কুমিল্লা শিক্ষাবোর্ডের আওতাধীন ৬টি জেলার ১৫৭৩টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে এ বছর প্রথম স্থান লাভ করেছে। স্কুলের ৩৮১ জন ছাত্রের মধ্যে ৩১৭জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। পাশের হার শতভাগ। জিপিএ-৫ প্রাপ্ত সর্বোচ্চ ছাত্র সংখ্যাও কুমিল্লা জিলা স্কুলের। জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা রাশেদা আক্তার জানান, সারা দেশে মোট ৩১৭টি সরকারি স্কুলেল মধ্যেও কুমিল্লা জিলা স্কুলের প্রথম স্থান লাভ করেছে। গত বছরও কুমিল্লা জিলা স্কুলের ৩২১জন ছাত্রের মধ্যে ২৮৫জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। পাশের হার ছিল শতভাগ। বোর্ডের শীর্ষ ২০টি স্কুলের মধ্যে জিলা স্কুলের স্থান ছিলো প্রথম। ২০১০ সালেও একই করম সাফল্য দেখিয়ে কুমিল্লা জিলা স্কুল প্রথম হওয়ার গৌরব অর্জন করে। প্রধান শিক্ষিকা রাশেদা আক্তার জানান, বরাবরই জিলা স্কুল বোর্ডের শীর্ষস্থান অধিকার করে আসছে। উল্লেখ্য ২০০৯ সালেও জিলা স্কুলের ৩২০জন ছাত্রের মধ্যে ২৬৪জন জিপিএ-৫ পেয়েছে। এই অনন্য সাফল্যের জন্য তিনি প্রথমে সৃষ্টিকর্তার কাছে শুকরিয়া আদায় করেন। সফলতার মূলে তিনি স্কুলের প্রত্যেকটি শিক্ষক শিক্ষিকা, অভিভাবক, ছাত্র এবং পরিচালক কমিটি তথা জেলা প্রশাসকের ত্যাগ প্রচেষ্টার কথা উল্লেখ করেন। তিনি স্কুলের সাফল্যকে সকলের অবদান বলে জানান। অনন্য সাফল্যের জন্য কুমিল্লা জিলা স্কুলকে গত ১০ বছর ধরে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। ২০০২ সালে কুমিল্লা বোর্ডের মোট ৪৩জন জিপিএ ৫ প্রাপ্ত ছাত্রছাত্রীর মধ্যে জিলা স্কুলের ছিলো-১৬ জন। পরের বছরে বোর্ডের মোট ৩৬জন জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ছাত্রছাত্রীর মধ্যে জিলা স্কুলের ছিলো ১০জন। ২০০৪ সালে জিলা স্কুল থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে ৯২জন, ২০০৫ সালে পায় ১৭৩জন, ২০০৬ সালে ২৭২জন, ২০০৭ সালে পায় ২৫৫জন। ২০০৮ সালে পেয়েছিল ৩১০ জন। ২০০৮ সালে পেয়েছিল ৩১০জন। ২০০৮ সালে পরীক্ষা দেয় ৩৯৫জন। গতকাল রাতে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মো: রেজাউল আহসান এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, জিলা স্কুলের ভর্তির সুযোগ পাচ্ছে। তাছাড়া এখানকার অভিভাবকরা খুব বেশি সচেতন। তাদের সচেতনতার ফসলেই এই ঈর্ষণিয় ফলাফল। শিক্ষকরাও এজন্য মূল্যবান অবদান রাখছে।
 
Total Reader : Hit Counter by Digits || The Site Design Mantain & Developed by RiverSoftBD