.
 
Publish Date: 30 Nov -0001 00:00:00

জেলা পরিষদে টেন্ডারবাজী রুখতে র‌্যাব ও পুলিশের সহযোগিতা চেয়েছেন ওমর ফারুক
Share
দায়িত্বে আসার পর কুমিল্লা জেলা পরিষদে কাউকে টেন্ডারবাজী করতে দেননি উল্লেখ করে কুমিল্লা জেলা পরিষদের প্রশাসক আলহাজ্ব মো: ওমর ফারুক বলেছেন আগামী দিনেও এ ধারা অব্যাহত থাকবে। এ জন্য তিনি কুমিল্লা র‌্যাব ও পুলিশের সহযোগিতা চেয়েছেন। গতকাল সোমবার কুমিল্লা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত কুমিল্লা জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় তিনি র‌্যাব ও পুলিশের কাছে এ সহযোগিতা চেয়েছেন। আইন শৃঙ্খলা কমিটির এ সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো: রেজাউল আহসান।
সভায় বক্তব্য রাখেন সিভিল সার্জন ডা. আবুল কালাম সিদ্দিক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার টুটুল চক্রবর্তী, জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক ফরিদ উদ্দিন আহমদ, ইসলামিক ফাউন্ডেশন কুমিল্লা কার্যালয়ে উপ-পরিচালক এবিএম গিয়াস উদ্দিন, জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সদস্য জিএম সিকান্দর, কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের সচিব মো: সামছুল আলম, জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা পবিত্র কুমার সাহা, আদর্শ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আয়েশা আক্তার, সদর দক্ষিণ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাতেমা জাহান প্রমুখ।
সভার শুরুতে বিগত সভার কার্যবিবরণী, সিদ্ধান্তসমূহ ও অগ্রগতি বিষয়ক প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো: ইকবাল হোসেন।
আলোচনায় অংশগ্রহণসহ গুরুত্বপূর্ণ তথ্যাবলী উপস্থাপন করেন কুমিল্লা জেলা পরিষদের প্রশাসক আলহাজ্ব ওমর ফারুক বলেন, কুমিল্লায় জেএমবি সদস্যদের উপস্থিতি আগের চেয়ে বেড়েছে। জঙ্গীদের আস্তানার সংখ্যাও বেড়েছে। তারা কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন ও আশেপাশের এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে গোপনে জঙ্গী তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। এছাড়াও কুমিল্লায় তারা জমি ব্যবসায় আধিপত্য বিস্তার করেছে। তাদের অধীনে বা পরিচালনায় বহু কিন্ডার গার্টেন, স্কুল ও হাসপাতাল চলছে। কুমিল্লায় পলাতক আসামীদের সংখ্যা এক লাখ। এদের অধিকাংশই জঙ্গী তৎপরতা সাথে জড়িত। সব মিলে কুমিল্লা এখন জঙ্গীদের উর্বর জায়গায় পরিণত হয়েছে। তিনি বাড়ি ভাড়া দেয়ার ক্ষেত্রে বাড়ির মালিকদের সতর্কতা অবলম্বনের আহবান জানান। তিনি বলেন, বেশ কিছু বাড়ির মালিক ভাড়াটেদের খোঁজ-খবর ঠিকমত না নিয়ে বাড়ি ভাড়া দিয়ে থাকেন, পরবর্তী সময়ে ওইসব বাসায় জঙ্গী ধরা পড়লে তারা নানা অজুহাত দেখান। তিনি এ ব্যাপারে বাড়ির মালিকদের ব্যাপারেও কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জেলা ও পুলিশ প্রশাসনকে আহবান জানান।
কুমিল্লায় মাদক ব্যবসা প্রসঙ্গে আলহাজ্ব ওমর ফারুক জানান, কুমিল্লায় মাদক ব্যবসায়ী পুরুষের পাশাপাশি মহিলার সংখ্যাও বেড়েছে। মাদকের বেলায় যেমন মাদক সম্রাট আছেন তেমনি মাদক সম্রাজ্ঞী আছেন। তিনি ৫ জন মাদক সম্রাজ্ঞীর নাম বলেন এবং তাদের গ্রেফতারের দাবি জানান।
তিনি জানান, মাদক কুমিল্লায় এমন পর্যায়ে পৌছেছে যে এখন রাস্তার পাশে প্রতিটি মোবাইল দোকানে, পান দোকানে ও ঝুপড়ি-বস্তিতে অবাধে মাদক বিক্রি হচ্ছে।
অবৈধ ইট ভাটা প্রসঙ্গে তিনি জানান, কুমিল্লায় মোট শ ৬৮টি ইটভাটা আছে। এর মধ্যে কয়টি সরকারি অনুমোদন পেয়েছে তা জানা প্রয়োজন। অনুমোদন ব্যতিত ইটভাটাগুলো ভেঙ্গে ফেলারও তিনি আহবান জানান। তিনি জানান, প্রতিদিনই জমির টপ সয়েল কেটে জমির উর্বরতা শক্তি বিনষ্ট করা হচ্ছে। এ টপসয়েল ব্যবহৃত হচ্ছে ইটভাটায়। এভাবে চলতে থাকলে কৃষি খাতে ধস নামবে। অন্যদিকে অবৈধ ইটভাটাগুলো স্কুল ও বাড়িঘরে পাশে স্থগিত হওয়ায় লোকজন বিশেষ করে শিশুরা শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হচ্ছে।
তিনি জানান, ভারত থেকে হিলটন নামক কীটনাশক আসছে, যা ফসলের জন্য ক্ষতিকর। ভারতীয় নাগরিক কুমিল্লায় যারা আসেন, তারা সাথে করে কোনো ডলার আনেন না। কিন্তু নিয়ম আছে ডলার আনার। তারা ডলার তো আনেনই না উপরন্ত কুমিল্লা থেকে ভারতে যাবার পথে প্রচুর টাকার মালামাল নিয়ে যান। এ ব্যাপারে বর্ডার এলাকায় দায়িত্বরত বিজিবি সদস্য ও সীমান্ত এলাকায় বসবাসকারী এ দেশের নাগরিকদের সচেতন হতে হবে।
ওএমএস-এ আটা বিক্রি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ওএমএস-এর আটা দামে কম অথচ সুস্বাদু। কিন্তু ওএমএস-এর ডিলাগণ ঠিকমত আটা বিতরণ করছে না। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের তিনি আহবান জানান।
আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে সকলকে আন্তরিক হতে হবে উল্লেখ করে জেলা প্রশাসক মো: রেজাউল আহসান বলেন, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটতে পারে এমন সংবাদ শোনার সাথে সাথে দ্রুত সমাধানের ব্যবস্থা করা হবে। একই সাথে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে সকলকে আন্তরিক হওয়ারও আহবান জানিয়েছেন তিনি। জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ আহবান জানান। তিনি বলেন, কুমিল্লায় আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। বিচ্ছিন্নভাবে যে কয়েকটি খুনের ঘটনা ঘটেছে, তা সামাজিক অস্থিরতার কারণে।
সভায় কুমিল্লা সিটি করর্পোরেশন এলাকায় যততত্র দুপাশে অবৈধভাবে গড়ে ওঠা টেক্সী স্ট্যান্ড অপসারণ, শাসনগাছা বাস স্ট্যান্ড সরানো, শাসনগাছা এলাকায় ফ্লাইওভার নির্মাণ, ইত্যাদি বিষয়ে আলোচনা করা হয়।

 
The Sire Design Mantain & Developed by RiverSoftBD