পত্রিকা আপডেট-১২:৩০ ।। সর্বশেষ খবর আপডেট ২৪ ঘন্টা
 
Publish Date: 30 Nov -0001 00:00:00

বাংলাদেশ ব্যাংক কুমিল্লা শাখার দাবি উপেক্ষিত:গোপনে গুটিয়ে নেয়া হয়েছে ইউনিট অফিস
Share
অতি সংগোপনে গুটিয়ে নেয়া হয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক কুমিল্লা ইউনিট অফিস। অথচ গত ৩৩ বছর ধরেই কুমিল্লা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি কুমিল্লায় বাংলাদেশ ব্যাংকের শাখা স্থাপনের দাবি জানিয়ে আসছে। কুমিল্লার দাবির পর সিলেট বরিশাল ও রংপুরে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের শাখা স্থাপিত হয়েছে। কোনো যৌক্তিক কারণ ছাড়াই কুমিল্লা শাখা স্থাপন বিষয়টি উপেক্ষিত হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক কুমিল্লা ইউনিট অফিস স্থাপিত হয় ১৯৭৫ সালে। কুমিল্লায় আমদানি রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো অফিসের সাথেই এই ইউনিট অফিসটি স্থাপিত হয়। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কুমিল্লা ইউনিট অফিসটি একটি রেজিষ্ট্রেশন ইউনিট অফিস হিসেবে ছিলো। এই ইউনিট অফিসটি শুধুমাত্র এলসি (লেটার অব ক্রেডিট) এর অনুমোদন দিতো। এটি কুমিল্লা ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং চাঁদপুর জেলাকে নিয়ন্ত্রণ করতো। এই রেজিষ্ট্রেশন ইউনিট অফিসটিতে ২জন কর্মকর্তা এবং একজন ৪র্থ শ্রেণির কর্মচারী কর্মরত ছিলেন। কুমিল্লা চেম্বার ভবনের নিচতলায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাভুক্ত আমদানি রফতানি সহকারী নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ের অধিভূক্ত অফিস ছিলো ইউনিট অফিসটি। কিন্তু ইউনিট অফিসটি প্রায় প্রতিদিনই থাকতো জনশূন্য। এ বিষয়ে একটি জাতীয় দৈনিকে ২০০৩ সালের ৯ আগস্ট বাংলাদেশ ব্যাংক কুমিল্লা ইউনিট ২৭ বছরেও শাখায় উন্নীত হয়নি শীর্ষক একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়। ২০০৫ সালের পর অত্যন্ত সংগোপনে বাংলাদেশ ব্যাংকের কুমিল্লা ইউনিট অফিসটি গুটিয়ে নেয়া হয়। কবে কখন এই ইউনিট অফিসটি কুমিল্লা থেকে নিয়ে যাওয়া হয় তা কেহ-ই বলতে পারছেন না। এ বিষয়ে কুমিল্লা আমদানি রফতানি অফিসের নির্বাহী অফিসার সুমন মাহবুব এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, আমি এবং আমার অফিসের বর্তমান কর্মকর্তা কর্মচারীগণ প্রায় সকলেই নতুন। তিনি ২০০৮ সালে কুমিল্লায় যোগদান করেন। তাঁর যোগদানকালে তিনি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ইউনিট অফিসটি পাননি বলে জানান। এ বিষয়ে কুমিল্লা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি এর সচিব ফারুক এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, ব্যাংকের ইউনিট অফিসটি আমদানি রফতানি নিয়ন্ত্রকের অধিভুক্ত ছিলো। সে কারণে অফিস গুটিয়ে নিতে আমাদেরকে অবহিত করার প্রয়োজন পড়েনি। তিনি জানেন না কবে ওই ইউনিট অফিসটি কুমিল্লা থেকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সচিব ফারুক আরো বলেন, কুমিল্লা বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি শাখা স্থাপনের জন্য চেম্বারের সাবেক সভাপতি অধ্যক্ষ আফজল খান এডভোকেট বহু আবেদন নিবেদন এবং তদবির করেছেন। তিনি গভর্নরকে লেখা তাঁর সর্বশেষ ২০০০ সালের ২৩ মার্চ তারিখের আবেদনে উল্লেখ করে বলেন ১৯৭৯, সাল থেকে আমরা দাবি জানিয়ে আসছি। আমাদের দাবির অনেক পরে খুলনা, রাজশাহী, সিলেট, বগুড়া, রংপুর এবং বরিশালে বাংলাদেশ ব্যাংকের শাখা স্থাপন করা হয়েছে। এতে কুমিল্লাবাসীর দাবি বার বার উপেক্ষিত হয়েছে। ওইসব জেলার তুলনায় কুমিল্লা অনেক প্রাচীন শহর। আমদানি রফতানি শিল্প বাণিজ্য, ব্যাংকিং কার্যক্রম, স্থল বন্দর, ইপিজেড, আয়কর প্রভূতি দিক বিচার বিশ্লেষণ করলে দেখা যাবে কুমিল্লায় ব্যাংদেশ ব্যাংকের শাখা স্থাপনে অগ্রাধিকার দাবি রাখে। কিন্তু তারপরও কুমিল্লাবাসীর অগ্রগণ্য দাবিকে এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে।
 
Total Reader : Hit Counter by Digits || The Site Design Mantain & Developed by RiverSoftBD