ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ক
৭৩ বছর ধরে সংস্কার-যন্ত্রণা
এবিএম আতিকুর রহমান বাশার, দেবীদ্বার ||
Published : Friday, 23 October, 2020 at 12:00 AM, Update: 23.10.2020 1:17:25 AM, Count : 1058
 ৭৩ বছর ধরে সংস্কার-যন্ত্রণা

*যাত্রী ও যানবাহনের স্বস্তি নেই একটি দিনও
*সর্বশেষ ২৩ কোটি টাকায় সংস্কার শেষ
হতে না হতেই আবার খোঁড়াখুঁড়ি!




মরণফাঁদখ্যাত কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কটি এখন দুর্ভোগের অপর নাম। ১৯৪৭ সালে সড়কটি নির্মাণের পর থেকে গত ৭৩ বছর ধরেই চলছে এ সড়কে খোঁড়াখুঁড়ি আর সংস্কারের কাজ। বছরের পর বছর এ সড়কটি পালাক্রমে দেখভালে রয়েছেন সড়ক ও জনপথের (সওজ) একদল কর্মকর্তা-কর্মচারী। অথচ একদিনের জন্যও স্বস্তিতে-নিরাপদে গন্তব্যে পৌঁছতে পারেননি যাত্রী যানবাহনগুলো। গত অর্থবছরেও ২৩ কোটি টাকা ব্যয়ে সড়কটির সংস্কারকাজের মেয়াদ চলতি বছরের ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বেঁধে দেয়া হলেও তা শেষ হয়নি। এখনো চলছে জোড়াতালি-খোঁড়াখুঁড়ি আর যাত্রীসাধারণের দুর্ভোগের অধ্যায়।
তবে সওজেরর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পুরাতন সড়কের জন্য আর কোনো বরাদ্ধ থাকছে না। আগামী একনেক বৈঠকে সাড়ে ৭ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে সড়কটি ফোরলেনে উন্নীতকরণের জন্য ৬ মাসের মধ্যে কার্যাদেশ পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।  
জানা যায়, গত বছরের জুন মাসে ‘কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ক’-এর কুমিল্লার ময়নামতি ক্যান্টনমেনট থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার কালামুড়া ব্রিজ পর্যন্ত ৪০ কিলোমিটার সড়ক সংস্কারকাজের দরপত্র আহবান করা হয়। পরে ‘হাসান টেকনো বিল্ডার্স’ ও ‘মেসার্স সোহাগ এন্টারপ্রাইজ’ ২৩ কোটি টাকার প্রাক্কলন ব্যয়ে কাজটি পায়। গত বছরের ৯ ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্তÑ ৯ মাস সময়সীমা বেঁধে দেয়া হয়। সেটা পেরিয়ে গেলেও এখনো সড়কের বুড়িচং উপজেলার কংশনগর বাজার ও দেবীদ্বার উপজেলার জাফরগঞ্জ বাজার এলাকায় ঢালাইকৃত অংশের একপাশ চালু হয়নি।

উপরন্ত দেবীদ্বার থানাগেট থেকে মহিলা কলেজ পর্যন্ত ঢালাই করা অংশের ৬টি প্যানেল ভেঙে ইট-পাথর-সুরকি বালুতে পরিণত হয়েছে। সড়কে ছোট-বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে রডগুলো ভেসে উঠেছে। ভারী যানবাহন যাতায়তকালে গর্তে পড়ে ঝাঁকুনিতে পাশের বহুতল ভবনগুলোও কেঁপে উঠছে। প্রায়ই রাতের অন্ধকারে রডের গুতোয় ভারী যানবাহনের টায়ার ফুটো এবং এক্সেল ভাঙার শব্দে ঘুমন্ত মানুষ জেগে উঠছেন। কিছু কিছু যানবাহন ওই অংশে ভাঙা সড়কের গর্তের মুখখোমুখী এসে থমকে যাচ্ছে। এতে যানজটও চরম আকার ধারণ করছে।
এ বিষয়ে সওজ বিভাগ কুমিল্লার নির্বাহী প্রকৌশলী ড. মোহাম্মদ আহাদ উল্লাহ কুমিল্লার কাগজকে বলেন, ‘অনেক আগেই সড়ক সংস্কারকাজ শেষ হয়ে গেছে। এখনো জাফরগঞ্জ বাজার এলাকার ঢালাই করা অংশের একাংশ চালু না হওয়ার বিষয়টি আমার জানা নেই। এখন যে কাজ করা হচ্ছে তা ডিপার্টমেন্টাল মেইন্টেনেন্স করা হচ্ছে।’ দেবীদ্বার থানাগেট এলাকায় সদ্যনির্মীত ঢালাই ভেঙে যাওয়ার বিষয়টি প্রথমে অজানা থাকলেও এই প্রতিবেদকের কাছ থেকে জানার পর ওই অংশের ৬টি প্যানাল পুনরায় সংস্কারের আশ^াসও দেন তিনি।
বিষয়টি নিয়ে এলাকায় ক্ষোভ দেখা দিলে সওজ গত বুধবার দুপুর থেকে সড়কের ওপর ঢালাইকৃত ভাঙা অংশের ৬টি প্যানেল উঠিয়ে নতুন করে কাজ শুরু করেছে। ওই অংশের সংস্কারের কারণে আবারো যানজটের কবলে পড়েছে সড়কটি। ভোগান্তিতে পড়ছে যাত্রীসাধারণ ও মালামাল পরিবহন।
স্থানীয়রা জানান, ১৯৪৭ সালে কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক সড়কটি চালু হয়েছে। দেশ স্বাধীনের পর সড়কটি আঞ্চলিক মহাসড়ক নামে পরিচিতি পায়। সড়কটি চালু হওয়ার পর বিগত ৭৩ বছর ধরে সড়কের খানাখন্দ, দেবে যাওয়া অংশ, ভেঙে যাওয়া ব্রিজ-কালভার্ট সংস্কারের কাজ চলে আসছে। কখনো ৪ কোটি, কখনো ১০ কোটি, আবার কখনো ২৩ কোটি টাকা ব্যয়ে সংস্কার ও মেরামতের কাজ চললেও একদিনের জন্যও যাত্রী ও মালামাল বহনের পরিবহগুলো স্বস্তিতে গন্তব্যে পৌঁছতে পারেনি। বছরের অধিকাংশ সময়ই সওজের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও ঠিকাদাররা সড়ক সংস্কারে ব্যস্ত সময় কাটিয়ে আসছেন। এখনো তা অব্যাহত আছে। কবে তা থেকে নিষ্কৃতি মিলবে তা কেউ জানে না।
স্থানীয়রা যানজট ও দুর্ঘটনা এড়াতে এবং সড়কটি দ্রুত ফোরলেনে উন্নীতকরণ, সড়কের দু’পাশের বৈদ্যুতিক খুঁটি, অবৈধ স্থাপনা, দৈনিক বাজার, সিএনজি ও অটোরিকসা স্ট্যান্ড উচ্ছেদ, সড়কের দু’পাশের জমি অধিগ্রহণ, পয়ঃনিষ্কাশনে সড়কের পাশে আরসিসি ড্রেন নির্মাণ ও ড্রেনের উপর স্লাভ দিয়ে ফুটপাত  তৈরি, গুরুত্বপূর্ণ স্পটগুলোতে ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণেরও দাবি জানান। তবে বিগত দুই যুগ ধরে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ও একনের সভা থেকে সড়কটি টুলেন, ফোরলেন, সিক্সলেনে উন্নীত করার আশ^াস দিলেও এরই মধ্যে কয়েকটি সরকার পরিবর্তন হওয়ার পরও তা আলোর মুখ দেখেনি। গত কয়েক বছরে একাধিক সার্ভেয়ার টিম, এলও অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারী, সড়ক ও জনপথ বিভাগের জরিপ, লেভেলিং মেশিন-দূরবীন দিয়ে সার্ভে করা, জমি অধিগ্রহণের সাইট নির্ধারণ ও পরিকল্পনা-মাপজোক করতে দেখা গেলেও সবই এখন ফাইলবন্দি বলে জানা গেছে।
স্থানীয়রা আরো জানান, এটি দেশের একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক। বিশেষ করে দেশের উত্তর ও পূর্বাঞ্চলের মানষুদের একমাত্র যোগাযোগ মাধ্যম। চট্টগ্রাম বন্দরসহ বাখরাবাদ, গোপালনগর, শ্রীকাইল, বাঙ্গরা, তিতাস, হবিগঞ্জ প্রভৃতি গ্যাসফিল্ডের সঙ্গে এবং ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তহাট, আখাউড়া স্থলবন্দরের সাথে যোগাযোগে সড়কটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। সওজ কুমিল্লার নির্বাহী প্রকৌশলীসহ একাধিক প্রকৌশলীর সাথে যোগাযোগ করলে তারা জানান,  সড়কের ঢালাইকৃত অংশটি কমপক্ষে ২১ দিন ব্যবহার থেকে বিরত থাকলে সড়কটি দীর্ঘদিনের স্থায়িত্ব পেত। এ সড়কের কাছাকাছি বিকল্প সড়ক না থাকায় সংস্কারের পরপরই যানবাহন চলাচল শুরু করতে হয়। তাই ভেঙে যাওয়া ৬টি প্যানেল পুনর্সংস্কার করতে হচ্ছে। তাছাড়া সড়কের আস্তরের নিচে কিছু নেই; লেয়ার করা হয়নি; তার উপর ভারী যানবাহন চলাচলে সংস্কারের কিছু দিনের মধ্যেই সড়কের বিভিন্ন অংশ ভেঙে আগের অবস্থানে চলে আসছে। বিগত বছরগুলোতে কয়েক দফা একনেক বৈঠকে এ সড়কটি প্রথম সারির মহাসড়কে উন্নীত করার পরিকল্পনা হলেও রাজনৈতিক টানাপোড়েনে তা বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি।
নাম না প্রকাশের শর্তে একজন উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী জানান, গত একনেক বৈঠকে ৭ হাজার ৫০০ কোটি টাকা ব্যয়ে ফোরলেন সড়ক নির্মাণের প্রস্তাব উত্থাপিত হয়। ওই প্রস্তাব ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে ঋণচুক্তির শর্তারোপে রাজনৈতিক সমঝোতার টানাপোড়েনে আটকে গেছে। আগামী একনের সভায় ঋণচুক্তির শর্ত শিথিল হলে ৬ মাসের মধ্যেই ফোরলেন সড়ক উন্নয়নের কার্যক্রম শুরু হবে।
বক্তব্য নেয়ার জন্য সড়কটির চলমান সংস্কার কাজে নিয়োজিত সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারদেও সাথে সেলফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি। 


« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft