ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
বংগবন্ধু হত্যায় নেপথ্যের কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচন সময়ের দাবী
Published : Saturday, 15 August, 2020 at 12:00 AM, Count : 249
বংগবন্ধু হত্যায় নেপথ্যের কুশীলবদের মুখোশ উন্মোচন সময়ের দাবীআহসানুল কবীর ||
জাতিরজনক হত্যার মধ্য দিয়ে বাংগালী জাতির ললাটে যে কলংক তিলক লেপন করা হয়েছে সেই কলংকের দাগ হাজার বছরেও অমোচনীয়। ছাত্র রাজনীতির উত্তাল সময়গুলোতে স্বপ্ন দেখতাম এদেশে একদিন মুজিব হত্যার বিচার হবে। একদিন জাতির পিতা তার স্ব-মহিমায় উদ্ভাসিত হবেন। দল ক্ষমতায় আসবে আর আমরা সেই ক্ষমতার বেনিফিসিয়ারী হব তা একটা সময় পর্যন্ত আমাদের দূরতম কল্পনাতেও ছিলোনা। চাওয়া শুধু পিতার হন্তারকদের বিচার।বুকের ভেতরে প্রতিশোধের  অনল  নিয়ে মুজিব রনাংগনের পলল ভূমিতে হাটতে হাটতে কখন যেন রাজনীতির চোরাবালিতে ডুবে গেছি তা নিজেও জানিনা। মনে আছে ১৯৮৯ সনে খুনী রশীদ একবার বজ্রপুর এশেছিলেন। প্রতিশোধ স্পৃহায় জ্বলতে থাকা আমি নেতাকে বলেছিলাম আমাকে একটা মাইন দিন আমি সেই মাইন সহ আত্মঘাতি হবো। কিন্তু পিতার হন্তারক  বধ হবে।নেতা অবাক বিস্ময়ে তাকিয়ে ছিলেন। নেতা হয়তো ভুলে গেছেন।ভুলে যাওয়াটা অস্বাভাবিক নয় কারণ এটাই সেদিন লক্ষ লক্ষ মুজিব প্রেমিকের মনের আকুতি ;প্রাণের বাসনা ছিলো।
আজকে দল ক্ষমতায়। আদালতের রায়ে জাতির পিতার খুনীদের ফাঁসীর রায় কার্যকর হয়েছে।কিন্তু  আসলে কি তাই?বংগবন্ধু হত্যার ক্যানভাসটি কি এত ক্ষুদ্র ছিলো কিংবা এই স্বল্প সংখ্যক লোক সম্পৃক্ত ছিলো?এখনই সময় একটি তদন্ত কমিশন করে নেপথ্যের কুশীলবদের চিহ্নিত করার।বংগবন্ধু হত্যায় শফিউল্যা কিংবা জিয়াউর রহমানের কি কোনই দায় নেই?আওয়ামীলীগ নামধারী যেসকল নেতা সেদিন মন্ত্রী সভায় গেলেন তাদের সবাই কি বন্দুকের মুখেই গেলেন?তাদের অনেকের মনে কি সেদিন ক্ষমতার মোহ কাজ করেনি? সেদিন বেতারে যেয়ে যারা সমর্থন দিলেন তারা কি অপরাধী নয়?লেঃ কর্ণেল আকবর হোসেন খুনী ডালিম এবং নূরের সাথে মিলে ংধহং রহঃবৎহধঃরড়হধষ নাম দিয়ে ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান তৈরী করলেন খুনীদের সাথে বারবার বৈঠক করলেন এগুলো কি শুধুই কাকতালীয়? ১৫ আগষ্ট সকালে কিলাররা সাইফুর রহমানের বাসায় মিলিত হয় এবং জিয়াউর রহমানকে সেনাবাহিনী চীফ বানানোর সিদ্ধান্ত নেয় এর পেছনের ঘটনাগুলো কি অপ্রকাশিতই থেকে যাবে?কুমিল্লার অনেক নেতা ১৪ আগষ্ট আগামসী লেনের বাসায়  দেখা করতে যান।যেতেই পারেন কিন্তু ১৫ আগষ্টের পর কিভাবে দশপাড়ায় মোশতাকের সাথে দেখা করতে গেলেন?সবুজ বিপ্লবের সাথে কুমিল্লায় আওয়ামীলীগ এর অনেক এমপি অনেক নেতা সম্পৃক্ত ছিলেন।তারা প্রতিবাদ করা থাক মোশতাককে ঘৃণা করার নৈতিক সাহসটুকু দেখাতে পারলেননা। মোশতাককে তারা ফুল দিয়েছেন একসাথে বসে সভা করেছেন।আবার পরবর্তীতে মুজিব বন্দনায় মুখে ফেনা তুলেছেন। সেইসব বর্ণচোরাদের প্রতি জানাই তীব্র ঘৃণা আর ধিক্কার।আজ সময় এসেছে তাদের সকলের স্বরুপ উন্মোচনের। এই হোক এবারের জাতীয় শোক দিবসের শপথ।
জয় বাংলা জয় বংগবন্ধু




« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft