ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
দশ বছরে সহস্রাধিক বেওয়ারিশ লাশ কুমিল্লায়
Published : Friday, 17 January, 2020 at 12:00 AM, Update: 17.01.2020 2:20:36 AM, Count : 407
দশ বছরে সহস্রাধিক বেওয়ারিশ লাশ কুমিল্লায়বশিরুল ইসলাম:
কুমিল্লায় গত ১০ বছরে সহ¯্রাধিক লাশ বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করা হয়েছে। শুধামাত্র গত এক বছরে ১০৮জনকে বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন করা হয়েছে। এদের মধ্যে পুরুষ বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ৬৫, নারী বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ৪০ এবং শিশু ৩টি। ডিসেম্বর ২০১৯ মাসে বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ছিল ১০, নভেম্বর মাসে ১২, অক্টোবর মাসে ৫, সেপ্টেম্বর মাসে ৬, আগষ্ট মাসে ১৪, জুলাই মাসে ১৩, জুন মাসে ৮, মে মাসে ৮, এপ্রিল মাসে ৭, মার্চ মাসে ৯, ফেব্রুয়ারী মাসে ৬ এবং জানুয়ারী মাসে ১০টি। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের তথ্যমতে ২০১৯ সালে বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ৩৫টি এবং ২০১৮ সালে ৪৩টি। তবে আশংকাজনকভাবে বেওয়ারিশ লাশ দাফন করা হচ্ছে কোন রকম ময়নাতদন্ত ছাড়াই।
অনুসন্ধানে জানা গিয়েছে বিভিন্ন থানা থেকে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগনের আবেদনের প্রেক্ষিতে জেলার আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম কোন রকম ময়নাতদন্ত ছাড়া বেওয়ারিশ লাশ দাফন করে আসছে। কিন্তু জেলা পুলিশের তথ্য বলছে তাদের কাছে গত ১বছরে মাত্র ২৫টি বেওয়ারিশ লাশের তথ্য রয়েছে। তাদের মধ্যে ৫টি লাশের পরিচয় সনাক্ত করা গিয়েছে। তাদের তথ্যমতে পুরুষ বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ১৩, মহিলা বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ১১, শিশু বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ১ । তাদের মধ্যে ৩টি গলিত ও অর্ধগলিত এবং বিকৃত হওয়ায় তা সনাক্ত করা সম্ভব হয়নি, ৩টি অজ্ঞাতনামা লাশের পরিচয় না পাওয়ায় তাদের সনাক্ত করা সম্ভব হয়নি।
গতকাল আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম কুমিল্লা জেলা শাখা অফিস থেকে এসব তথ্য পাওয়া গিয়েছে।  
এ অফিস থেকে আরো জানা যায়, ২০১০ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত দশ বছরে বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ১হাজার ১শ ৩২টি। তাদের মধ্যে ২০১৯সালে ১০৮টি, ২০১৮ সালে ১০৩টি, ২০১৭ সালে ১০৫টি, ২০১৬সালে ১৩০টি, ২০১৫সালে ১১৩টি, ২০১৪সালে ১০৮টি, ২০১৩ সালে ৯৫টি, ২০১২সালে ১১৯টি, ২০১১সালে ১১৭টি, ২০১০সালে ১৩৪টি। গত দশ বছরের মধ্যে ২০১০ সালে বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ছিল সবচেয়ে বেশি এবং সবচেয়ে কম বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ছিল ২০১৩ সালে। ২০১৯ সালে বেওয়ারিশ লাশের মধ্যে পুরুষ বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ছিল ৬৫, নারী বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ৪০ ও শিশু বেওয়ারিশ লাশের সংখ্যা ছিল ৩টি।
এ বিষয়ে আঞ্জুমান মফিদুল ইসলামের কুমিল্লা শাখার সহকারী পরিচালক সাজ্জাদ হোসেন জানান, পুলিশের লিখিত আবেদনের প্রেক্ষিতে এবং প্রাপ্তি রশিদের মাধ্যমে লাশ গ্রহন করে থাকি। লাশ বেওয়ারিশ হিসেবে দাফনের জন্য পুলিশ আমাদেরকে আবেদনের সাথে সংশ্লিষ্ট লাশের সুরতহাল রিপোর্ট ১কপি এবং চালান ১কপিসহ আবেদন গ্রহন করি। পুলিশের বাহিরে কাহারো নিকট থেকে আমরা কোন লাশ গ্রহন করিনা। শুধুমাত্র আবেদনের প্রেক্ষিতে ইসলামি শরীয়াহ মোতাবেক মৃত ব্যক্তিকে কাফন-দাফন করে থাকি।
কুমিল্লার পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম বার পিপিএম জানান, এ তথ্যটি নিয়ে আমার যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে। প্রাথমিকভাবে অনেক সময় বেওয়ারিশ লাশের নাম ঠিকানা তাৎক্ষনিকভাবে পাওয়া যায়না। পরে কিছু সনাক্ত হয়। আবার অনেক মৃত দেহ আছে যে গুলো পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য ফরেনসিক বিভাগে রয়েছে। কিছু স্বাভাবিক মৃত্যু হয় রেল লাইনে, সড়কে  বা বিভিন্ন স্থানে তাদেরকে আমরা বেওয়ারিশ হিসেবে নেইনা।  অজ্ঞাত বা বেওয়ারিশদের বিষয়ে আমরা লাশের ছবি সহ আশে পাশের সকল জেলার থানা সমূহে বার্তা প্রেরণ করে থাকি। পত্রিকায় ছবিসহ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে থাকি।

 





« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft