ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
273
তবু স্বাভাবিক হয়নি পেঁয়াজ
Published : Friday, 18 September, 2020 at 12:00 AM, Update: 18.09.2020 1:27:37 AM
তবু স্বাভাবিক হয়নি পেঁয়াজ
*কুমিল্লায় বৈঠকের পর কিছুটা লাগাম
*আড়তদারদের নতুন পাঁয়তারা!
মাসুদ আলম।।
সংবাদ মাধ্যমে অসাধু ব্যবসায়ীদের মুখোশ উন্মোচন, প্রশাসনের ধারাবাহিক অভিযান আর সর্বশেষ ব্যবসায়ী-প্রশাসনের মতবিনিময় সভায় কড়া সিদ্ধান্তের কারণে কুমিল্লায় পেঁয়াজের আড়তে কিছুটা হলেও লাগাম পড়েছে। কিন্তু এখনো আগের অবস্থায় ফেরেনি। আড়তগুলোয় গতকাল বৃহস্পতিবারও পেঁয়াজের কেজি ছিল ৫৫ থেকে ৬৫ টাকার মধ্যে। আর খুচরা বাজারে সেই পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ১০০ থেকে ১২০ টাকা কেজিতে।
তবে ছল-চাতুরির অভাব নেই আড়তদার-পাইকারদের। বুধবারের সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিক্রয় রসিদ কাছে রাখা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। কিন্তু পেঁয়াজ আমদানিকারকরা রসিদ দিচ্ছে না দাবি করে আড়তদাররা আর পেঁয়াজের নতুন চালান আনছেন না বলে জনিয়েছেন। এটা পেঁয়াজের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে ফের দাম বাড়ানোর পাঁয়তারা কি না, সে সন্দেহও সচেতন মহলের রয়েছে। কারণ, আগের কম দামে কেনা পেঁয়াজের যথেষ্ট মজুদ থাকা সত্ত্বেও আড়তদার-পাইকাররা এখনো আগের দরে ফিরে আসছেন না। বরং বুধবারের চেয়ে কোনো কোনো আড়তে গতকাল বৃহস্পতিবার পেঁয়াজের দাম বেশি পাওয়া গেছে।
ভারত পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দিচ্ছেÑ গত মঙ্গলবার এই খবর প্রচারের সঙ্গে সঙ্গে কুমিল্লার আড়তদাররা ৪০-৪৫ টাকা কেজির পেঁয়াজ একলাফে বাড়িয়ে দিয়ে ৬৮-৭০ টাকায় বিক্রি শুরু করেন। খুচরা বাজারে আবার সেই পেঁয়াজ কুমিল্লাবাসীকে কিনে খেতে হয় ৭০-৭৫ টাকা কেজি দরে। পরদিনই আবার খবর রটে, ভারত ওই সিদ্ধান্ত স্থগিত করতে পারে। সঙ্গে সঙ্গে আড়তদাররা একটু দাম কমিয়ে ৫৫-৬০ টাকায় পেঁয়াজ বিক্রি করেন বুধবার। এ অবস্থায় পেঁয়াজের বাজার অস্থিরতা সৃষ্টিকারী আড়তদার ও ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ওইদিনই মাঠে নামে কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের ম্যাজিস্ট্রেট। বাজার নিয়ন্ত্রণে আনতে বুধবার দুপুরে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক সম্মেলন কক্ষে কুমিল্লা দোকান মালিক সমিতি ও পেঁয়াজ ব্যবসায়ীদের সাথে বৈঠকে বসে জেলা প্রশাসন। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়Ñ পাইকার বা খুচরা কোনো ব্যবসায়ীই ক্রয়মূল্য, পরিবহনসহ অন্যান্য খরচ বাদ দিয়ে পেঁয়াজে কেজিতে ৫ টাকার বেশি মুনাফা করতে পারবেন না; সব ব্যবসায়ীকেই পেঁয়াজের ক্রয় রসিদ সঙ্গে রাখতে হবে ইত্যাদি।
গতকাল বৃহস্পকিবার দুপুরে কুমিল্লার চকবারের প্রত্যেকটি আড়ত ঘুরে দেখা যায়, বুধবার সন্ধ্যায় যে ব্যবসায়ী প্রতি কেজি পেঁয়াজ বিক্রি করেছেন ৬০ টাকায়, সেই ব্যবসায়ী গতকাল পেঁয়াজ বিক্রি করেছেন ৬৫ টাকায়। ওই পেঁয়াজের আড়তের নাম হাসেম স্টোর। একই অবস্থা স্বাধীনতা বাংলা স্টোরেও। আগের দিন তারা যে পেঁয়াজের দাম বলেছেন ৫৫ টাকা, গতকাল সেই  পেঁয়াজ বিক্রি করছেন ৬২ টাকায়।
জানতে চাইলে চকবাজারের হাসান স্টোরের মালিক ফজলুল রহমান ও মামা ভাগিনা স্টোরের মালিক জহিরুল ইসলাম বলেন, ‘বাজারে পেঁয়াজের সংকট তৈরি হচ্ছে। আমরা চাইলে পেঁয়াজের চালান আনতে পারি। কিন্তু আমদানিকারকরা পেঁয়াজ বিক্রির রসিদ দিচ্ছেন না। এদিকে জেলা প্রশাসন থেকে নিষেধ করেছে রসিদ ছাড়া ক্রয়-বিক্রয় না করতে। তাই আমরা ঝুঁকি নিয়ে পেঁয়াজের নতুন চালান আনার কথা ভাবছি না।’  
জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরণ অধিদপ্তর, কুমিল্লার সহাকারী পরিচালক মো. আছাদুল ইসলাম বলেন, ‘বর্তমানে পেঁয়াজের বাজার স্থিতিশীল রয়েছে। আমরা সার্বক্ষণিক মনিটনিং করছি। গতকাল বৃহস্পতিবার চান্দিনায় চারটি দোকানে অভিযান চালিয়ে ১৯ হাজার টাকা জরিমানা করেছি। আশা করি, পেঁয়াজের বাজার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবে।’




 





© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};