ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
642
"কোরাইশী ব্রাদার্স"
Published : Friday, 19 June, 2020 at 2:41 PM, Update: 19.06.2020 3:03:26 PM
পঞ্চাশ, ষাট ও সত্তর দশকে যারা কুমিল্লা শহরে বসবাস করেছেন বা কুমিল্লা শহরে যাদের যাতায়াত ছিল তাঁদের কাছে খুবই পরিচিত ছিল "কোরাইশী ব্রাদার্স" নামে এই বইয়ের স্টলটি ।
যেটি ছিল কুমিল্লা শহরের মোগলটুলীতে, অর্থাৎ রাজগঞ্জ বাজারের উল্টোদিকে।

আমরাও ছোটবেলা এই দোকান থেকে বই কিনেছি , আর বাবা কুমিল্লা আসলে এখান থেকে তাঁর প্রিয় বিভিন্ন ধরনের ম্যাগাজিন এবং পত্রিকা নিতেন নিয়মিতভাবে । এবং কোরাইশী সাহেবের সাথে ছিল বাবার বেশ সখ্যতা ।

তাহলে Mohammad Ishtiaq Hossain থেকে শুনি কুমিল্লার এই প্রসিদ্ধ দোকানটির ইতিকথা সংক্ষিপ্ত আকারে, যাথেকে হয়ত অনেকের মানসপটে ভেসে উঠবে অনেক স্মৃতি মনের অজান্তে ।

“ আমার বাবা আবদুল হান্নান কোরাইশী, যিনি পাকজুমুরিয়াত, পাকিস্তান খবর, বাংলাদেশ সংবাদ, সচিত্র বাংলাদেশ, নবারুণ, মাহেনও, পূর্বাচলসহ বর্তমান ডিএফপি থেকে প্রকাশিত পত্রিকাগুলোর সম্পাদকীয় বিভাগে কর্মজীবন কাটিয়েছেন অত্যন্ত সুনামের সাথে ।
আমার দাদা কলকাতা ট্রামে চাকরি করবার সুবাদে কলকাতায় পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন পার্কসার্কাস এলাকায় ।
হঠাৎ দাদার মৃত্যু হবার ফলে আব্বা এবং চাচারা কুমিল্লা শহরের পৈত্রিক ভিটায় ফিরে আসেন । এবং সম্মুখীন হতে হয় তাঁদেরকে পরিবারিক এবং বিষয়সম্পত্তি সংক্রান্ত বড় ধরনের ঝামেলায় ।

যাক সে কথা , ফিরে আসি কোরাইশী ব্রাদার্স প্রসঙ্গে।
সম্ভবত ১৯৫৮ কি ১৯৫৯ (আনুমানিক) সালে এটির যাত্রা শুরু হয়েছিল।
আব্বা আমার বড় চাচাকে (আব্বার দ্বিতীয় ভাই আবদুল মান্নান কোরাইশী) দিয়ে এটি চালু করলেন।
শুরুটা করেন নিজের সংগ্রহে রাখা বই ও পত্রিকা (বঙ্কিমচন্দ্র, রবীন্দ্রনাথ, নজরুল, মধুসূদন ও শরৎচন্দ্রের বই এবং মাহেনও ও পাকিস্তান খবর) দিয়ে ।
পরবর্তীতে আমার ছোট চাচাও আবদুস সোবহান কোরাইশী
(যিনি তথ্য মন্ত্রণালয়ে কাজ করতেন, তৎকালিন সময়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রেসনোটগুলো বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই হাতে লিখে সাইক্লোস্টাইল করে বিতরণ করা হতো, যার প্রায় প্রতিটিই ছিল উনার হাতের লিখা, সুন্দর হস্তাক্ষরের জন্যে এ দায়িত্ব উনার উপর ন্যস্ত হতো) আব্বার সাথে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন পারিবারিক প্রতিষ্ঠান কোরাইশী ব্রাদার্সের জন্যে।
দু'ভাইয়ের ঢাকা থেকে পাঠানো বই ও সংবাদপত্র এবং ৩য় ভাই দোকান চালানোর মধ্য দিয়ে "কোরাইশী ব্রাদার্স" এতই সুনাম অর্জন করতে সক্ষম হয়েছিল যে, শুধু কুমিল্লা শহর নয়, আশেপাশের জেলার লোকজনও সরকারি কাজে কুমিল্লা শহরে আসলে এখান থেকে বই , সংবাদপত্র কিনে নিয়ে যেতেন।

তৎকালিন সময়ে "কোরাইশী ব্রাদার্স"-এর এতই নাম ও জনপ্রিয়তা ছিল যে, অনেক পুরানো দৈনিক পত্রিকা ও বই দেদারছে বিক্রি হতো। রমরমা অবস্থা ছিল।

ঢাকা থেকে পুরানো দৈনিক পত্রিকা (সংবাদপত্র) পৌঁছাতে না পৌঁছাতে কাড়াকাড়ি লেগে যেত ক্রেতাদের মাঝে।
পত্রিকার তালিকায় ছিল মর্নিং নিউজ, ইত্তেফাক, দৈনিক পাকিস্তান, অবজারভার, পয়গাম, ইত্যাদি।
এমনকি এক মাস পুরানো দৈনিক পত্রিকারও ব্যাপক চাহিদার কারণে পৌঁছামাত্র নিমেষের মধ্যেই বিক্রি হয়ে যেত।
আর বাংলাদেশ স্বাধীনতা-উত্তর সময়ে আব্বা ও আমার ছোট চাচা নানা ব্যস্ততার কারণে পুরোপুরি মনোযোগ না দিতে পারার কারণে এটির সুনাম ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়, যিনি দায়িত্বে ছিলেন।
শুধু তাই নয় দোকানটি অন্যের কাছে ভাড়া এবং পরবর্তীতে এ পারিবারিক বুকস্টলটি বিক্রি করে দেয়া হয় দুই ভাইয়ের সম্মতি ব্যতিরেকে।

যার ফলশ্রুতিতে কোরাইশী ব্রাদার্স হারিয়ে যায় সময়ের আবর্তে, কালের স্রোতে।
কোরাইশী ব্রাদার্সের সাথে অঙ্গাঙ্গীভাবে যারা জড়িত ছিলেন তাদের কেউই এখন আর বেঁচে নেই।



 লেখক                
এম কে জাকারিয়া
নির্বাহী পরিচালক
পিপলস ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড





© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};