ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
1224
" কুমিল্লায় বাংলাদেশের প্রথম পতাকা এবং বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী "
Published : Sunday, 14 June, 2020 at 3:54 PM, Update: 14.06.2020 4:39:01 PM
জুন , ২০২০ বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী সাহেব আমাদের ছেড়ে পরপারে চলে গেছেন জানাচ্ছি ভালবাসা এবং শ্রদ্ধা অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে জাতির এই বীর সন্তানকে
গত ০৯ই ফেব্রুয়ারি ২০২০, অনুর্ধ্ব ১৯ যুব বিশ্বকাপের ফাইনালে ভারতকে হারিয়ে শিরোপা জিতে বাংলাদেশ বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পরই আমাদের জিলা স্কুলের ছোটভাই অনূর্ধ্ব- ১৯ বিশ্বকাপ টিমের বোলিং কোচ এবং অ্যাসিস্ট্যান্ট কোচ জাকি (Mahbub Ali Zaki) মাঠে দাঁড়িয়ে জাতীয় পতাকা হাতে একটি স্মরণীয় ছবি তোলে আমার ইনবক্সে পাঠায় 

জাতীয় পতাকা হতে এই ছবিটি দেখে ঐতিহাসিক একটি ঘটনার কথা মনে পড়লো আমার যা সবার সাথে শেয়ার না করে পরলাম না স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকার নক্সাকার জিলা স্কুলের ৬৩ ব্যাচের ছাত্র শিব নারায়ন দাসকে ৬২'র ছাত্র আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়ার কারণে পাকিস্তান সরকার কুমিল্লা জিলা স্কুল থেকে বহিষ্কার করেআর এই জাতীয় পতাকার নক্সায় শিব নারায়ন দাসকে সরাসরি সহযোগিতা করেছিলন জাকির বাবা এবং জিলা স্কুলের ছাত্র বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব মোহাম্মদ আলী সাহেব, যা কুমিল্লা শহরের খুব কম মানুষই জানে  ঐতিহাসিক ঘটনাটি তাহলে উনার মুখ থেকে শুনি ;১৯৭১ সাল। ২রা মার্চ। দুপুর ১২টা কি ১টা হবেশিব নারায়ণ দাস এসে আমার দোকানে হাজির। আমার দোকান তখন কুমিল্লা নিউমার্কেটের পূর্ব গেটে। নাম ছিল রূপায়ণপ্রথমেই জিজ্ঞাসা মোহাম্মদ আলী ভাই আজ আপনি কুমিল্লায় আছেন ত ? বললাম হ্যাঁ , তারপরের প্রশ্ন, রাতে কটায় দোকান বন্ধ করেন? বললাম ৯ টায়শিব নাারায়ণ বলল, রাত নয় টায় আসব। খুব জরুরী কাজ আছে। আপনি অবশ্যই আমার জন্য অপেক্ষা করবেন। আমি বললাম, ঠিক আছে থাকবআমি মূলতঃ একজন আর্টিষ্টরাজনীতি করি বলে সংগঠনের কর্মীদের সাথে আমার একটা সু-সম্পর্ক আছে। আমি তাদের কাছে মোহাম্মদ আলী ভাই। সেইসূত্রে শিব নারায়ণ দাসের সাথে আমার আছে বেশ ঘনিষ্টতা। আর শিব নারায়ণ ছাত্রলীগের একজন একটিভ সদস্যএদিকে আমাদের জন্য সময়টা তখন খুব একটা ভাল নয়। দেশের অবস্থা থমথমে। কখন যে কি হয় বলা যায় না ?কতগুলি বিশেষ কারণে কুমিল্লায় কিছুসংখ্যক লোক শিব নারায়ণের উপর বিরক্ত। আর ঠিক এই সময়ে আমার সঙ্গে তার কি এমন জরুরী কাজ। আমি একটু চিন্তিত হয়ে গেলাম রাত ঠিক ৯ টায় শিব নারায়ণ এল। আমি তখনও দোকান বন্ধ করিনি। কর্মচারীদের কিছু আগেই বিদায় করে দিয়েছি। শিব নারায়ণ বলল, আমি আপনার চেম্বারে বসি। আপনি দোকান বন্ধ করে আসুন। আমি তখনও জানি না তার কি এমন জরুরী কাজ। যা হউক আমি দোকান বন্ধ করে চেম্বারে আসলাম। এখানেই আমি সমস্ত ডিজাইনের কাজ করিশিব নারায়ণ বলল , ভাই একটা ডিজাইন করতে হবে। আমি সব সময় সংগঠনের সব কাজ করি। কাউকে বিমুখ করি না। তাদের কাছে আমার আলাদা একটি পরিচিতি আছে। বললাম কি ডিজাইনশিব নারায়ণ বলল, আজ যে ডিজাইনটা করবেন তার কথা আগামী কাল বিকাল পর্যন্ত কাউকে বলতে পারবেন না। এটার সঙ্গে আমাদের বাঙ্গালীদের অস্তিত্বের প্রশ্ন জড়িত। তখন আমি কাজের গুরুত্বটা অনুভব করতে শুরু করেছি। বলল, এটা শুধু আপনার আর আমার মধ্যে সীমাবব্ধ থাকবেবললাম ঠিক আছে। তোমার আর আমার মধ্যেই থাকবেশিব নারায়ণ তখন বলল স্বাধীন বাংলার পতাকা আঁকতে হবে। আমি অবাক! থ বনে গেলাম। শিব নারায়ণের কথায়। বলে কি! বললাম, কি বল তুমি? শিব নারায়ণ বলল, হ্যাঁ ভাই তাই করতে হবেআমরা আজ আকঁব স্বাধীন বাংলার পতাকা। কালকে মিছিলের সামনে উড়বে এই পতাকা৩রা মার্চ কুমিল্লায় সর্বদলীয় গণ মিছিল হওয়ার কথা। সেই মিছিলের ছবি আমি উঠাব। আগামী কাল যে মিছিল হবে তা আমি জানতামআমার একটা ক্যামেরা ছিল। সংগঠনের মিটিং মিছিলের ছবি তুলতামএছাড়া একজন রাজনৈতিক কর্মী হিসাবে আমার মিছিলে থাকার কথাবললাম, ঠিক আছে। বল কিভাবে পতাকার ডিজাইন করতে হবে। শিব নারায়ণ মোটামুটি আঁকতে পারত। তার ড্রইংও ভাল ছিল। বিশেষ করে একটি জিনিস দাড় করানোর ব্যপারে তার আইডিয়া আসত তাড়াতাড়িশিব নারায়ণ বলল, 'X ' আকারে একটি পতাকার মাপ নিয়ে তার মাঝে একটি বড় লাল বৃত্ত হবে। যার অর্থ হবে লাল সূর্য্য এবং এই বৃত্তের মাঝে থাকবে বাংলাদেশের ম্যাপপ্রায় দুঘন্টা পরিশ্রম করে দুজনে মিলে সবুজ জমিনের উপর লাল সূর্য্য ও তার মাঝে সোনালী রং এর (গোল্ডেন ইয়েলো) বাংলাদেশের ম্যাপ রচিত পতাকা তৈরী করলামআমি শিব নারায়ণকে বললাম এখন এটা কাপড় দিয়ে কে তৈরী করবে?শিব নারায়ণ বলল; মোহাম্মদ আলী ভাই তা আপনাকে বলবো নাআপনি যে আঁকলেন , তা যেমন আমি ছাড়া কেউ জানে না , যে দর্জি সেলাই করবে তাও কেউ জানবে নাসত্যি শিব নারায়ণ আমাকে বললনা কে তৈরী করবে এ পতাকা। পরে জেনেছি ওহাব ভাই ( মাষ্টার ওহাব, কুমিল্লা স্টেডিয়ামের তৃতীয় দোকান ) রাত ৩টা পর্যন্ত শিব নারায়ণ সহ এই পতাকা তৈরী করেনপরদিন বিকেলে মিছিল শুরু হওয়ার পূর্ব মুহূর্তে শিব নারায়ণ পাকিস্তান জাতীয় সংসদ সদস্য প্রফেসর খোরশেদ আলমের হাতে এই পতাকা তুলে দেনতিনিই মিছিলের অগ্রভাগে উড্ডীন করেন এই পতাকা। বাংলাদেশের প্রথম পতাকা মিছিলের অগ্রভাগে এই পতাকা নিয়ে সমস্ত কুমিল্লা শহর প্রদক্ষিণ করা হয়মিছিলের অগ্রভাগে এই পতাকা আমিও বহন করি কিছুক্ষণ পুলিশ লাইন থেকে শাসনগাছা পর্যন্তআমার স্বাধীনতা।আমার মাতৃভূমির প্রতীক।বাংলাদেশের প্রথম পতাকা। আমি ধন্য। আমি ধন্য। "ধন্যবাদ উল্লেখ্য যে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী স্বাধীনতার পরে ছিলেন ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজ , ঢাকা বিএএফ শাহীন কলেজের লেকচারার এবং ছিলেন তিনি প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ কুমিল্লা আর্ট কলেজের বলাবাহুল্য যে , উনার আপন দুই ভাই আমীর আলী এবং ফজলে আলী'কে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে পাকিস্তান আর্মি ধরে নিয়ে যায় এবং তাঁদের লাশগুলিও পাওয়া যায় নাই এখন পর্যন্ত । পরিশেষে দোয়া করি মহান আল্লাহ্‌তালায় যেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী সাহেব বেহস্ত নসীব করেন ।   
লেখক---------
এম কে জাকারিয়া
 নির্বাহী পরিচালক
পিপলস ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড





© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};