ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
212
অর্থপাচার রোধে কঠোর সরকার : বাণিজ্যমন্ত্রী
Published : Sunday, 8 March, 2020 at 11:06 PM
অর্থপাচার রোধে কঠোর সরকার : বাণিজ্যমন্ত্রী নিজস্ব প্রতিবেদক ||

দেশ থেকে অস্বাভাবিক হারে অর্থপাচার বেড়েছে। তবে এ পাচার রোধে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় শক্ত অবস্থান নিয়েছে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। তিনি বলেন, যেকোনো মূল্যেই হোক অর্থপাচার বন্ধ করতে হবে।

রোববার (৮ মার্চ) ঢাকার ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে ইনকোটার্মস-২০২০ এর ওপর একটি কর্মশালার উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

উল্লেখ্য, গত মঙ্গলবার প্রকাশিত যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংস্থা গ্লোবাল ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টিগ্রিটির (জিএফআই) এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে যে, ২০১৫ সালে বাংলাদেশ থেকে পাচার হয়েছে এক হাজার ১৫১ কোটি ডলার। দেশীয় মুদ্রায় ৯৮ হাজার কোটি টাকা। পাচারের পরিমাণ ২০১৪ সালের চেয়ে বেড়েছে।

পাচার হওয়া অর্থ দিয়ে চারটি পদ্মা সেতু নির্মাণ করা সম্ভব। জিএফআই’র প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দুই প্রক্রিয়ায় এই অর্থপাচার হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে, বিদেশ থেকে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে মূল্য বেশি দেখানো (ওভার ইনভয়েসিং) এবং রফতানিতে মূল্য কম দেখানো (আন্ডার ইনভয়েসিং)।

জিএফআই’র তথ্য মতে, গত সাত বছরে বাংলাদেশ থেকে পাঁচ হাজার ২৭০ কোটি ডলার পাচার হয়েছে। স্থানীয় মুদ্রায় যা সাড়ে চার লাখ কোটি টাকা। যা দেশের চলতি বছরের (২০১৯-২০২০) জাতীয় বাজেটের প্রায় সমান। প্রতি বছর গড়ে পাচার হয়েছে প্রায় ৬৪ হাজার কোটি টাকা। টাকা পাচারে বিশ্বের শীর্ষ ৩০ দেশের তালিকায় রয়েছে বাংলাদেশের নাম।

আমদানি-রফতানির আড়ালে এভাবে অর্থপাচারের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এটা আমরাও জেনেছি, রিপোর্টগুলোও দেখেছি। এগুলো দেখার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক আছে। মোস্টলি বলা হচ্ছে, ওভারপ্রাইজিং করা হচ্ছে। ওভার ইনভয়েস করে টাকা-পয়সা নিয়ে যাচ্ছে। এটা একটা বড় কথা।’

তিনি বলেন, ‘সে ক্ষেত্রে তো একটা আন্তর্জাতিক মানদণ্ড আছে। জিনিসটার দাম এক টাকা, সেটা যদি দেড় টাকা করে নিয়ে যায়, সেখানে তো আমাদের নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। এটা একটা আলোচিত বিষয়। আমরা বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে শক্ত অবস্থান নিয়েছি। সংশ্লিষ্ট সংস্থায় চিঠি-পত্রও দিয়েছি, ব্যবস্থা নেয়ার জন্য। এই পরিমাণ টাকা যদি চলে যায়, আমাদের দেশের অবস্থাও তো তেমন নয়। যেমন- হংকংয়ে কোনো রেস্ট্রিকশন নেই, সেখানকার জনগণ যত ইচ্ছা টাকা পাঠাতে পারে, যত ইচ্ছা আনতে পারে। কিন্তু আমরা তো সেই অবস্থায় এখনও যাইনি। আমাদের তো আরও অপেক্ষা করতে হবে। আমাদের দেশ থেকে টাকা যেন পাচার না হয়ে যায়, আমরা সতর্ক আছি।’

ইপিবির তথ্য বলছে, বাংলাদেশ থেকে ৪০ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রফতানি হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, রফতানি আয় হয়েছে ৩৫ বিলিয়ন ডলার। এক বছরে দুই সংস্থার তথ্যে পাঁচ বিলিয়ন ডলার তফাত! এমন প্রশ্নে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কিছুদিন ধরে এ বিষয়টা আমরা শুনছি। কিন্তু এখনও এ বিষয়ে তেমন কোনো অফিসিয়াল তথ্য পায়নি। তবে যেকোনো মূল্যেই হোক আমাদের টাকা পাচার বন্ধ করতে হবে।

এর আগে কর্মশালায় বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ক্রমবর্ধমান বিশ্ববাণিজ্যে বিধিবিধান সময়োপযোগী হওয়া প্রয়োজন। বাণিজ্য বিরোধ নিরসনে ইন্টারন্যাশনাল চেম্বার অব কমার্স (আইসিসি) গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে। প্রতিযোগিতামূলক বিশ্ববাণিজ্যে নতুন নতুন সমস্যা দেখা দেয়। এজন্য প্রচলিত নিয়ম-কানুনগুলোরও পরিবর্তন প্রয়োজন হয়। ওয়ার্ল্ড বিজনেস অর্গানাইজেশনের সহায়তায় সময়ে সময়ে তালমিলিয়ে নতুন রুলস প্রবর্তন হয়। এজন্য নিউ ইনকোটার্মস-২০২০ রুলস চালু হতে যাচ্ছে।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সকল ক্ষেত্রে দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ আগামী ২০২৪ সালে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হবে। প্রতিযোগিতা করেই বাংলাদেশকে বিশ্ববাণিজ্যে এগিয়ে যেতে হবে। বাণিজ্য বৃদ্ধির সাথে সাথে বাণিজ্যবিরোধও বাড়বে- এটাই স্বাভাবিক। নতুন সমস্যা সমাধানে প্রয়োজন নতুন নিয়ম-কানুন। নতুন নতুন বাণিজ্যবিরোধ সমাধানে নিউ ইনকোটার্মস-২০২০ রুলস অধিক কার্যকর হবে বলে বিশ্বাস করি।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন- বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল চেম্বার অব কমার্সের প্রেসিডেন্ট মাহবুবুর রহমান, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও সৈয়দ মাহবুবুর রহমান, আইসিসি বাংলাদেশ ব্যাংকিং কমিশনের চেয়ারম্যান ও সিইও মুহাম্মদ এ রুমি আলী প্রমুখ।





সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};