ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
357
গোমতীর চরে ‘সবুজ-স্বপ্ন’
Published : Monday, 20 January, 2020 at 12:00 AM, Update: 20.01.2020 2:24:04 AM
 
গোমতীর চরে ‘সবুজ-স্বপ্ন’শাহীন  আলম, দেবিদ্বার  ||
অপূর্ব মায়াভরা সৌন্দর্যের হাতছানি দিয়ে ডাকছে গোমতী নদীর চর ও দু'পাড়ের প্রকৃতি। অপার সম্ভাবনাময় গোমতীর এ চরকে ঘিরে স্বপ্ন বুঁনছে দু’পাড়ের শত শত কৃষক। চরের মাটি উর্বর হওয়ায় কৃষকরা  গ্রীষ্ম ও শীতকালে বিভিন্ন শাক-সবজি চাষে ব্যস্ত থাকেন।
গোমতীর দুই পাশে বির্স্তিণ চর জুড়ে প্রায় ১৫/২০ হাজার হেক্টর জমির মধ্যে আবাদি জমি প্রায় ৮/১০ হাজার হেক্টর। কিন্তু আজো এ জমিতে আধুনিক কৃষির ছোঁয়া লাগেনি। সরকারি কোনো উদ্যোগও চোখে পড়েনি। অন্যদিকে, থেমে নেই বিস্তির্ণ এ উর্বর চরের মাটি কাটা সিন্ডিকেট। এ চরের হাজার হাজার হেক্টর উর্বর মাটি পুড়ছে দুই শতাধিক ইটভাটায়। এ নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন চরের কৃষকরা।
ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা কুমিল্লার কাগজকে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, গোমতীর চারদিকে ভূমিখেকোরা উর্বর গোমতীকে গলাটিপে ধরেছে। যে চরের ফসল স্থানীয় বাজারের চাহিদা মিটিয়ে দেশের বিভিন্ন জায়গায় নেওয়া হতো, ওই চরের ফসলে এখন আর কৃষকদের সংসারই চলে না। গোমতীর চরকে ক্ষত-বিক্ষত করে ফেলা হয়েছে। প্রভাবশালী সিন্ডিকেট চরের মাটি লুট করে নিয়ে যাচ্ছে।       
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শীত  মৌসুমে লাল শাক, পুইঁশাক, মিষ্টি কুমড়া, পালং শাক, ধনেপাতা, আখ, মূলা, ঢেড়স, গোল আলু, সিম, মিষ্টি আলু, ফুলকপি, বাঁধাকপিসহ নানা জাতের শাকসবজি চাষ হয় এ গোমতীর চরে। আর গ্রীম্ম-বর্ষায় এ চরে শসা, ঝিঙে, পটল, বরবটি, কড়লা, লাউ, চাল কুমড়া, পাটশাক, কাকড়লসহ বিভিন্ন শাক সবজি চাষ হয়। অর্থাৎ কোন মৌসুমেই বাদ যায়না চাষবাদ। শীত মৌসুমে এ চরে শাক-সবজির বাম্পার ফলন হয় বেশি।  
স্থানীয় কৃষকরা কুমিল্লার কাগজকে জানান, গোমতীর নাব্যতা হ্রাস পাওয়ায় জেগে উঠেছে ছোট ছোট অসংখ্য বালুচর। এই চরে বছরের যেকোন সময়ই ফসল চাষ করা যায় নির্ভয়ে। বাজারে চরের শাক সবজির চাহিদা থাকায় ভালো দামেও বিক্রি করা যায়। কিন্তু একটি অসাধু চক্র দিনের পর দিন চরের মাটি কেটে বিক্রি করছে। আস্তে আস্তে কমে যাচ্ছে এ চরের চাষাবাদ। অর্থনৈতিক ভাবেও ভেঙে পড়ছে এ চরে কৃষকরা।   
সরেজমিনে গিয়ে আরও দেখা যায়, জেলার বুড়িচং, বি-পাড়া, দেবিদ্বার, মুরাদনগর, দাউদকান্দিসহ বেশ কিছু অঞ্চলে গোমতীর দু’পাশের কৃষকরা ব্যাপক চাষাবাদে উর্বর চরে নেমেছে কোমর বেঁধে। নদীর ধু-ধু বালু চরে যেখানে যে ফসল প্রযোজ্য তাই চাষাবাদ করেছে কৃষকরা। চরে আবাদের ফলন খুব ভালো হওয়ায় কৃষকের মুখে সুখের হাসি থাকে সবসময়ই।
গোমতী চরের কৃষক বাবুল মিয়া ৬০ শতক জমিতে শসা চাষ করেছেন। তিনি জানান, এবার শসার উৎপাদন ভালো হয়েছে। প্রতি মণ শসা ভালো দামেও বিক্রি হয়েছে। এলাকার চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি তার শসা যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে।
লেখা পড়ার পাশাপাশি চরের ৫২ শতক জমিতে চাষাবাদ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন চরের বাসিন্দা সাব্বির হোসেন। তিনি কুমিল্লার কাগজকে বলেন, পড়ালেখা বাদে বাকি সময়টুকু কৃষিজমিতে ফসলের পরিচর্চা করেন। তার জমিতে বেগুন, ঝিঙা, কড়লা, ধান, শসি ও মরিচ রয়েছে। এসব চাষ করে সংসার ও নিজের পড়া-লেখা চালান সাব্বির।
চরের কৃষক ওয়াহেদ আলী কুমিল্লার কাগজকে বলেন, চরাঞ্চলের জমি অসমতল ও বালির পরিমাণ বেশি হওয়ায় ইরি-বোরোর পরিবর্তে একই জমিতে একই সঙ্গে ছয়-সাত প্রকার ফসল চাষে ব্যাপক লাভবান হয়েছেন। শুরুতেই আখ চাষের জন্য জমি তৈরি করেন, পরে ওই জমিতে প্লট করে লাল শাক, লাউ, কুমড়া, ফুলকপি চাষ করেন। এসব সবজি রোপণের ১৫/২০ দিন পর সারিবদ্ধভাবে মরিচ, ঢেঁড়স ও পুঁই শাকের বীজ বপন করেন। দুই এক মাসের মধ্যে সবজি বাজারেও বিক্রি করেন তিনি।
কৃষক মো. সেলিম মিয়া কুমিল্লার কাগজকে বলেন, শীতে ১২ শতক জমিতে ফুলকপি, বাঁধাকপি লালশাক, টমেটো, মরিচ ও ধনেপাতা চাষ করেন। খরা মৌসুমে ওই একই জমিতে বেগুন, মরিচ, কুমড়া, শসা চাষ করে ব্যাপক লাভবান হয়েছেন।  
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা উত্তম কুমার কবিরাজ কুমিল্লার কাগজকে  বলেন, যে চর পতিত থাকার কথা ছিলো ওই চরে এখন সোনা ফলছে। এই চরে বারো মাসই ফলন হয়। নদীর দু’পাশের কৃষকরা স্ব-উদ্যোগে এসব জমি চাষাবাদ করে আসছেন। উপজেলা কৃষি অফিস থেকে বিভিন্ন সময়ে তাদেরকে বীজ সার প্রণোদনা দিয়ে সহযোগিতা করা হচ্ছে।   








সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};