ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
50
‘সূর্যোদয়ের অন্তরালে’ প্রেম, মুক্তিযুদ্ধ আর অসাম্প্রদায়িকতার গল্প
Published : Saturday, 9 November, 2019 at 12:00 AM
‘সূর্যোদয়ের অন্তরালে’ প্রেম, মুক্তিযুদ্ধ আর অসাম্প্রদায়িকতার গল্পহিমাদ্রিশেখর সরকার ||
কাহিনীর শুরু ১৯৭১-এর আগে। মূলত কাহিনীর আবর্তন মুক্তিযুদ্ধকে ঘিরে। যে মুক্তিযুদ্ধ বাঙালির সবচে’ বড় অর্জন। এই অর্জনের মূল্য দিতে গিয়ে দুটি মধ্যবিত্ত শিক্ষিত পরিবার থেকে হারিয়ে যান দুজন উচ্চশিক্ষিত পুরুষ। যারা ছিলেন পরিবারের কর্তা। সরাসরি মুক্তিযুদ্ধ না করেও যারা মুক্তিযোদ্ধা। এ দুটি পরিবারের ছেলেমেয়ে আর তাদের মধ্যে প্রেম-ভালোবাসার গল্প শুনিয়েছেন নবীন লেখক কল্লোল মজুমদার। বইয়ের নাম ‘সূর্যোদয়ের অন্তরালে’। এটি তার প্রথম উপন্যাস।
কাহিনীটি পড়তে গিয়ে প্রথমে মনে হয়েছে এটি বুঝি ছকে ফেলা নিছক একটি প্রেমের গল্প। কিন্তু কাহিনী যখন এগোয় তখন আস্তে আস্তে পাঠকের মনোযোগ কেড়ে নেন কাহিনীকার। মনে হতে থাকে, দেখি শেষটায় কি আছে। তরতরে ঝরঝরে গদ্য পাঠককে না টেনে পারে না। পাঠক থামতে পারেন না। দেখাই যাক না কাহিনীর অন্তরালে কি কাহিনী লুকিয়ে আছে।
 সচ্ছল মধ্যবিত্ত আশিকুর রহমান। তার মেয়ে একমাত্র তাহমিনা বেগম। তাহমিনার দুই মেয়ে রেণু আর বেণু। অপরদিকে আরিফ হোসেনের দুই ছেলে সৈকত আর হিমেল। রেণুু-বেণুুর বাবা শফিক আরিফ-এর বন্ধু । পরিবার দুটোর মধ্যে জানাশুনা বহু আগে থেকেই। বিভিন্ন পারিবারিক বিপর্যয় দুটো পরিবারকে আরও কাছে এনে দেয়। বড় ঘটনা হল মুক্তিযুদ্ধ। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শফিক ১৪ ডিসেম্বর ১৯৭১ তাহমিনার জন্য ঔষুধ আনতে গিয়ে আর ফিরে আসেননি।
শফিক-তাহমিনার বড় মেয়ে রেণুু আর আরিফ-এর বড় ছেলে সৈকত-এর প্রেম পরিবার দুটোর মধ্যে নৈকট্য বাড়ায়। আরেকটি শহীদ পরিবার-এর ছেলে প্লাবন এসে যুক্ত হয় শহীদ শফিক-এর ছোট মেয়ে বেণুুর সাথে। প্লাবন যুদ্ধে মা-বাবা দুজনকে হারিয়ে ফুফুর প্রযতেœ বড় হয়েছে। সেই ফুফু আয়েশা আক্তার একাত্তরের নরপশুদের হাতে সম্ভ্রম হারানোদের একজন। প্লাবনের জন্যই আয়েশা আক্তার নিজের জীবন উৎসর্গ করে দিলেন। এসব নির্যাতিত আর শহীদ পরিবারের মর্মযাতনা ভুক্তভোগী ছাড়া অন্যরা বুঝবেন না।
এই কাহিনীতে আরেক জোড়া প্রেমিক-প্রেমিকা আছে। একজন কলেজ শিক্ষক-এর মেয়ে দীপা। যাকে পড়াতে গিয়ে প্রেমে পড়ে সৈকত এর ছোটভাই হিমেল। কয়েকটি প্রেমের গল্প এক মোহনায় এসে মিশেছে আমাদের আলোচ্য কল্লোল মজুমদার-এর উপন্যাসে। তাহলে ‘সূর্যোদয়ের অন্তরালে’ কি নিছক একটি প্রেমের উপন্যাস? একমাত্র নিবিড় পাঠেই তা জানা যাবে। লেখক শুধু প্রেমের গল্প বলেই শেষ করেন নি। দেশের স্বাধীনতা অর্জনে বাঙালির যে আত্মত্যাগ অর্থাৎ এ অর্জনের অন্তরালের যে কাহিনী সেটাই লেখক এখানে বর্ণনা করেছেন।
‘সূর্যোদয়ের অন্তরালে’ আত্মত্যাগের এক মহান গল্প। যে আত্মত্যাগ আজ প্রায় ভুলে গেছে এদেশের মানুষ। এ আত্মত্যাগ ছিল দেশের জন্য। নিজের পরিবারের জন্য নয়। তাইতো যুদ্ধে মা-বাবা হারানো প্লাবন-এর উপলব্ধি, ‘যে সকল পরিবারের উপর দিয়ে একাত্তর সনে ঝড় বয়ে গেছে তারা ছাড়া অন্যদের মধ্যে কেন যেন স্বাধীনতার চেতনা দুর্বল হয়ে যাচ্ছে’ (পৃষ্ঠা ৫৬)। আর জন্ম নিয়ে যে বাবাকে দেখেনি সেই মেয়ে বেণুর উপলব্ধি, ‘কোন সন্তান কি চায় তার জন্মদাতা বাবাকে হারিয়ে দেশের স্বাধীনতা অর্জন করতে?’ (পৃষ্ঠা ৫৫)। এ প্রশ্নের উত্তর কি কারো জানা আছে? বইটি পড়তে পড়তে পাঠকের মনেও অনেক প্রশ্নের উদ্রেক হবে। তাদের চিন্তা-চেতনার জগতে কিছুমাত্রায় হলেও সাড়া জাগাবে এই বই।
কল্লোল মজুমদারের প্রথম বাংলা উপন্যাস ‘সূর্যোদয়ের অন্তরালে’। এটি তার ইংরেজি ভাষায় লেখা উপন্যাস ঈবৎঃধরহ উৎবধসং-ঞযব ইধপশমৎড়ঁহফ ড়ভ ঝঁহৎরংরহম এর ভাবানুবাদ। তবে সম্পূর্ণ আলাদা। এ উপন্যাসের গঠনশেলী ও কাহিনীবিন্যাস পাঠককে এমন এক ঘোরের মধ্যে ফেলবে মনেই হবে না যে এটি ঔপন্যাসিকের প্রথম উপন্যাস। লেখক একটি নিজস্ব ভাষা আয়ত্ব করেছেন যাতে সাবলিলতা ও সহজবোধ্যতা আছে। বইটি পড়ার পর পাঠকের মনে হবে তার আরেকটি বই পেলে এখনি পড়া যেত।
উপন্যাসে কল্লোল শুধু প্রেম আর মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে থাকেননি। এসেছে সহনীয়মাত্রায় সাহিত্য ও দর্শনের আলোচনা। এসেছেন রবীন্দ্রনাথ ও কার্ল  মার্কস। আমরা জানি, সাধারণত বড়দের নিকট থেকে ছোটরা শেখে। এখানে দেখা যাচ্ছে ছোটর কাছ থেকে বড় শিখছেন। রাজ্জাক সাহেব গণিতের অধ্যাপক কিন্তু তিনি মার্কসীয় দর্শন-এর পাঠ নিচ্ছেন তার মেয়ের গৃহশিক্ষক হিমেলের কাছ থেকে। হিমেল প্রকৌশল-এর ছাত্র আবার অধ্যাপক সাহেবের মেয়ের প্রেমিক। এটি একটি ব্যতিক্রমী বিষয়। অধ্যাপক রাজ্জাক শেষ বয়সে এসে  শিখছেন পূঁজিবাদের উৎপত্তি ও উদ্বৃত্ত মূল্যতত্ত্ব, ঐতিহাসিক ও দ্বান্দ্বিক বস্তুবাদ ইত্যাদি। এধরণের জ্ঞানপিপাসু শিক্ষক সমাজে আজকাল বিরল।
আশিকুর রহমানের গ্রামের জমিদার রাধাকৃষ্ণ চত্রবর্তী। তিনি গ্রামের হাইস্কুলের প্রতিষ্ঠাতা। তার নাতি অরুণলাল আশিক সাহেবের বন্ধু। অরুণ লালের ছেলে অমিত বহু বছর পর কলকাতা থেকে এসেছেন আশিক সাহেবের ঢাকার বাসায়। তাহমিনা যাকে দাদা বলে ডাকেন। বেণু যাকে মামা বলতে অজ্ঞান। আশিক সাহেবের পরিবার একটি অসাম্প্রদায়িক পরিবার। নিজেদের পরিবারের একজন হিসেবে অমিত তাদের পরিবারে থেকেছেন। নিজেদের গ্রামে গেছেন। মুক্তিযোদ্ধা অমিত মুক্তিযুদ্ধের কাঙ্খিত ফলাফল না পেয়ে একদিন দেশ ছেড়েছিলেন। আশিক সাহেব অসাম্প্রদায়িক বলে তার পুরো পরিবার সেই শিক্ষা পেয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ভূলুন্ঠিত করে আজ যখন তথাকথিত শিক্ষিতরা সাস্প্রদায়িকতার পাঠ নিচ্ছেন এই সময়ে আশিক সাহেবের পরিবারের মত পরিবার খুবই দরকার। না হলে মুক্তিযুদ্ধের সব অর্জন একদিন হারিয়ে যাবে। কিন্তু আশংকার বিষয় এ ধরণের পরিবার বাংলাদেশে দিন দিন কমে যাচ্ছে।
একজন নবীন লেখক হিসেবে কল্লোল মজুমদার বেশ মুন্সিয়ানার পরিচয় দিয়েছেন তার প্রথম বইটিতেই। তবে বইটিতে ভুল বানান ও বানান ভুল বেশি চোখে লাগে। যা বইটির আভিজাত্য কিছুটা হলেও ক্ষুন্ন করেছে। রেণু, বেণু, প্লাবন তিনটি নামের বানান এভাবে লেখা দরকার ছিল। পরবর্তী সংস্করণে তিনি বানানগুলো ঠিক করে নেবেন। আর বারবার অধ্যায় এক, অধ্যায় দুই-এরকম লেখার দরকার ছিল না। বইটির প্রচ্ছদ. বাঁধাই ও ছাপার মান ভালো। আগ্রহী পাঠকেরা বইটি কিনলে ও পড়লে ঠকবেন না এ ভরসা আমরা দিতে পারি। আর লেখকও তার পরবর্তী বইটির প্রস্তুতি নেবেন এ প্রত্যাশা করতেই পারি। তার ‘সূর্যোদয়ের অন্তরালে’ বইটি পড়ে আমাদের প্রতীতি জন্মেছে কল্লোল মজুমদার বাংলাসাহিত্যে একজন ডাকসাইটে ঔপন্যাসিক হিসেবে তার জায়গা করে নেবেন।

‘সূর্যোদয়ের অন্তরালে’
কল্লোল মজুমদার
প্রকাশক-ধ্রুবতারা
১২৫, নিউ কাকরাইল রোড (শান্তিনগর প্লাজা), ৬ষ্ঠ তলা, ঢাকা-১০০০
িি.িৎড়শড়সধৎর.পড়স   ঢ়যড়হব ১৬২৯৭
মূল্য ২৫০ টাকা, পৃষ্ঠা সংখ্যা ১৬০।
প্রকাশকাল -একুশে বইমেলা ২০১৯ খ্রিস্টাব্দ।
........ হিমাদ্রিশেখর সরকার ঃ প্রাবন্ধিক, গবেষক ও ছোটগল্পকার। মোবাইল ০১৭২০২১২৮৫৬ বসধরষ ংযবশযড়ৎযরসধফৎর@মসধরষ.পড়স










© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};