ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
457
যুদ্ধাপরাধী আজহারের ফাঁসি আপিলেও বহাল
Published : Friday, 1 November, 2019 at 12:00 AM, Update: 01.11.2019 2:15:59 AM
যুদ্ধাপরাধী আজহারের ফাঁসি আপিলেও বহালসর্বোচ্চ আদালতের চূড়ান্ত রায়েও যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের দেওয়া সাজা বহাল থাকায় মুক্তিযুদ্ধকালীন রংপুর অঞ্চলের ত্রাস এটিএম আজহারুল ইসলামকে ফাঁসিকাষ্ঠেই যেতে হবে। জামায়াতের সাবেক সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আজহার একাত্তরে ছিলেন ইসলামী ছাত্র সংঘের জেলা কমিটির সভাপতি এবং আলবদর বাহিনীর রংপুর শাখার কমান্ডার।
সে সময় তার নেতৃত্বেই বৃহত্তর রংপুরে গণহত্যা চালিয়ে ১৪ শ’র বেশি মানুষকে হত্যা, বহু নারীকে ধর্ষণ ও অপহরণ, নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছিল বলে এ মামলার বিচারে উঠে আসে।
প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন চার বিচারকের আপিল বেঞ্চ বৃহস্পতিবার মাত্র এক মিনিটে রায়ের সংক্ষিপ্তসার জানিয়ে দেয়। আপিল আংশিক মঞ্জুর হলেও তাতে সংখ্যাগরিষ্ঠের রায়ে সর্বোচ্চ সাজা বহাল থাকে।
এই বেঞ্চের অন্য তিন সদস্য হলেন- বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, বিচারপতি জিনাত আরা এবং বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান।
প্রায় পাঁচ বছর আগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রায়ে তিন অভিযোগে এটিএম আজহারের মৃত্যুদ- এবং দুই অভিযোগে মোট ৩০ বছরের কারাদ- হয়েছিল।
আপিলের রায়েও রংপুর অঞ্চলে গণহত্যা ও হত্যার তিন ঘটনায় তার মৃত্যুদ- সংখ্যাগরিষ্ঠ বিচারকের মতের ভিত্তিতে বহাল থাকে।
অপহরণ ও আটকে রেখে নির্যাতনের আরেকটি ঘটনায় ট্রাইব্যুনালের দেওয়া পাঁচ বছরের সাজাও সংখ্যাগরিষ্ঠ বিচারকের মতের ভিত্তিতে বহাল রাখা হয়।
আর বহু নারীকে রংপুর টাউন হলে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নির্যাতন কেন্দ্রে ধর্ষণের জন্য তুলে দেওয়ায় ঘটনায় ট্রাইব্যুনালের রায়ে আজহারের ২৫ বছরের সশ্রম কারাদ- হলেও এ অভিযোগ থেকে তাকে খালাস দিয়েছে আপিল বিভাগ।
২০১০ সালে যুদ্ধাপরাধের বহু প্রতীক্ষিত বিচার শুরুর পর আপিলে আসা এটি অষ্টম মামলা, যার ওপর চূড়ান্ত রায় হলো।
নিয়ম অনুযায়ী আসামি এই রায় পর্যালোচনার আবেদন করতে পারবেন। তাতে সর্বোচ্চ আদালতের সিদ্ধান্ত না বদলালে আসামি রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চাইতে পারবেন। তাতেও তিনি বিফল হলে সরকার সাজা কার্যকরের পদক্ষেপ নেবে।
রায়ের পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় আসামির প্রধান আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, “চারজন জাজের ভেতরে তিনজন জাজ একমত হয়ে ফাঁসি বহাল রেখেছেন। আরেকজন দ্বিমত পোষণ করেছেন। এরপর আমরা পূর্ণাঙ্গ রায় পেলে রিভিউ করব। আমরা আশাবাদী যে রিভিউতে অন্তত ফাঁসির আদেশটা থাকবে না।”
অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, “এসব (যুদ্ধাপরাধ) মামলার আসামিরা সবাই একই কথা বলেছে যে তাদের রেসপনসিবিলিটি নাই, ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু এই মালায় প্রত্যক্ষদর্শীর সাক্ষীর ওপর ভিত্তি করেই তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে।”
তিনি বলেন, যুদ্ধাপরাধী এটিএম আজহারুল ইসলামকে যে তিনটি চার্জে মৃত্যুদ- দেওয়া হয়েছিল, তার তিনটি চার্জই বহাল আছে এবং তার ফাঁসির রায়ও বহাল আছে।
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ সিমন রায়ের পর আদালত প্রাঙ্গণে সাংবাদিকদের বলেন, “রায়ে আমরা খুশি। ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এতদিন যে বিচারহীনতার সংস্কৃতি ছিল, সেখান থেকে আমরা বেরিয়ে এসছি।”
একাত্তরে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে ২০১২ সালের ২২ অগাস্ট মগবাজারের বাসা থেকে আজহারকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরের বছর ১২ নভেম্বর অভিযোগ গঠনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় তার যুদ্ধাপরাধের বিচার। বৃহস্পতিবার আপিল বিভাগে রায় ঘোষণার সময় আজাহার ছিলেন গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগারে।
সিনিয়র জেল সুপার মো. শাজাহান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আদালতের কাগজপত্র পাওয়ার পর আমরা অফিসিযালি তাকে রায় জানাব।”

ফাঁসিকাষ্ঠের পথে:
নিয়ম অনুযায়ী, সুপ্রিম কোর্ট এই রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশের পর তা ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হবে। সেটি হাতে পেলে মৃত্যু পরোয়ানা জারি করবে ট্রাইব্যুনাল। সেই মৃত্যু পরোয়ানা ফাঁসির আসামিকে পড়ে শোনাবে কারা কর্তৃপক্ষ।
পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশের ১৫ দিনের মধ্যে রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদন করতে পারবে আসামিপক্ষ। তবে রিভিউ যে আপিলের সমকক্ষ হবে না, তা যুদ্ধাপরাধে মৃত্যুদ-প্রাপ্ত জামায়াত নেতা আবদুল কাদের মোল্লার ‘রিভিউ’ খারিজের পূর্ণাঙ্গ রায়েই স্পষ্ট করা হয়েছে।
রিভিউ আবেদনের নিষ্পত্তি হয়ে গেলে এবং তাতে মৃত্যুদ- বহাল থাকলে আসামিকে তা আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে সংবিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার সুযোগ দেওয়া হবে। তিনি স্বজনদের সঙ্গে দেখাও করতে পারবেন।
রাষ্ট্রপতির ক্ষমার বিষয়টি ফয়সালা হয়ে গেলে সরকার কারা কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সেই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করবে। এখন আজহারকে ফাঁসিকাষ্ঠে দেখার অপেক্ষায় রংপুরবাসী

চূড়ান্ত বিচার:
আপিল বেঞ্চের চার বিচারক আসন নেওয়ার পর ৯টা ৬ মিনিটে তিনটি বাক্যে রায়ের আদেশ অংশ ঘোষণা করেন প্রধান বিচারপতি।
রায়ে বলা হয়, ২, ৩ ও ৪ নম্বর অভিযোগে ট্রাইব্যুনালের দেওয়া মৃত্যুদ-ের সাজা সংখ্যাগরিষ্ঠের মতের ভিত্তিতে বহাল রাখা হয়েছে। ৫ নম্বর অভিযোগে ট্রাইব্যুনালের দেওয়া কারাদ- থেকে আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে। আর ৬ নম্বর অভিযোগে কারাদ-ের সাজা সংখ্যাগরিষ্ঠের মতের ভিত্তিতে বহাল রাখা হয়েছে।







© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};