ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
450
বঙ্গোপসাগরে ১৪ ট্রলারসহ ৫৭ জেলেকে অপহরণ
Published : Monday, 25 February, 2019 at 1:01 PM
বঙ্গোপসাগরে ১৪ ট্রলারসহ ৫৭ জেলেকে অপহরণ কক্সবাজারের পাটুয়ারটেক থেকে সেন্টমার্টিন পর্যন্ত অঞ্চলের উপকূলবর্তী গভীর বঙ্গোপসাগরে ১৪টি মাছধরা ট্রলারসহ অন্তত ৫৭ জেলেকে অপহরণ করেছে জলদস্যুরা। রোববার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত বঙ্গোপসাগরে প্রায় ১শ’ কি.মি. দীর্ঘ এলাকাজুড়ে এসব অপহরণের ঘটনা ঘটে।

সোমবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) সকালে এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য ট্রলার মালিকদের জরুরি বৈঠক ডাকা হয়েছে।

জানা গেছে, জলদস্যুদের হাতে আটক ট্রলারগুলোর মধ্যে ৮টি কক্সবাজারের, ৪টি চট্টগ্রামের ও ২টি বরগুনার পাথরঘাটা এলাকার। এরমধ্যে কক্সবাজারের আবু সোলতান নাগু কোম্পানির মালিকানাধীন এফবি ছেনুয়ারা ও এফবি ভাই ভাই নামের দু’টি ফিশিং বোট চারজন করে মোট আটজন, নূনিয়াচঢ়ার মোজাম্মেল কোম্পানির এফবি মায়ের দোয়ার তিন মাঝিমাল্লা, একই এলাকার সোহেলের মালিকানাধীন বোট ৪ জন, নতুন বাহারছড়ার ওসমান গনি টুলুর মালিকানাধীন এফবি নিশান-১ ও ২ ফিশিং বোট দু’টি ১৮ জন জেলেসহ অপহরণ করা হয়েছে।

এছাড়া কক্সবাজার শহরের এন্ডারসন রোডের কাইয়ূম সওদাগরের মালিকানাধীন এফবি রিফাত ও এফবি রফিকুল হাসান নামের দু’টি ফিশিং বোট তিনজন করে ছয়জন জেলেসহ অপহরণের শিকার হয়। একই সময়ে বরগুনার পাথরঘাটা এলাকার এফবি ইদ্রিস ও এফবি জলপুরী নামের দু’টি ট্রলারও তিনজন করে জেলেসহ অপহরণ করা হয়।

রোববার একই এলাকায় এফবি কিংফিশার-১ ও ২ নামের ২১০ অশ্বশক্তি সম্পন্ন দু’টি ট্রলার, চট্টগ্রাম এলাকারও ৪টি মাছধরা ট্রলারসহ মোট ১২জন অপহরণের শিকার হয়েছে। বর্তমানে জলদস্যুরা এ শক্তিশালী ট্রলার দু’টি ব্যবহার করে সাগরে ফিশিং ট্রলারসহ মাঝিমাল্লাদের জিম্মি করছে বলে জানায় ট্রলার মালিক সমিতি সূত্র।

জেলা ফিশিং ট্রলার মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মাস্টার মোস্তাক আহমদ বলেন, জেলের বেশ ধরে ডাকাতদল প্রথমে ট্রলারের কাছে আসে এবং পরে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ট্রলারের নিয়ন্ত্রণ নেয়। ডাকাতেরা ট্রলারসহ জেলেদের জিম্মি করার পর কয়েকজনকে রেখে বাকিদের অন্য ট্রলারে তুলে ছেড়ে দেয়। এরমধ্যে বেশ কিছু জেলে রাতে কূলে ফিরে এসেছে।

তিনি জানান, অপহৃতদের মুক্তির বিনিময়ে ট্রলারপ্রতি ৪/৫ লাখ করে পণ দাবি করছে জলদস্যুরা। শনিবার একইভাবে অপহরণের শিকার ৩০টি ট্রলার ২/৩ লাখ হারে মুক্তিপণ দিয়ে একদল জলদস্যুর কাছ থেকে মুক্ত হয়ে ফের আরেকদল জলদস্যুর কবলে পড়েছে। বঙ্গোপসাগরের বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে টানা গত ২৫ দিন ধরে জলদস্যুদের এ তাণ্ডব চলছে। কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের এমন কোনো মাছধরা ট্রলার নেই, যেটি এই সময়ে জলদস্যু আক্রান্ত হয়নি। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সাগরে মাছধরা বন্ধ করে ট্রলারগুলোকে কূলে ফিরে আসার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে এবং এ বিষয়ে আলোচনার জন্য সোমবার সকাল ১১টায় সমিতির জরুরি বৈঠকও ডাকা হয়েছে।

কক্সবাজারে নবগঠিত র‌্যাব-১৫ এর কোম্পানি কমান্ডার মেজর মেহেদী হাসান বলেন, সাগরে ডাকাতির ঘটনা শুনেছি। সোনাদিয়া থেকে জলদস্যুদের আমরা নির্মূল করেছি। কিন্তু গভীর সাগরে গিয়ে জলদস্যু দমনের অনুমতি পাওয়া গেলে র‌্যাব তাই করবে।

উল্লেখ্য, শনিবারও বঙ্গোপসাগরের একই অঞ্চলে প্রায় ৩০টি মাছধরা ট্রলার জেলেসহ অপহরণের শিকার হয়। এতে আতঙ্কিত জেলেরা সাগরে মাছ না ধরেই ট্রলার নিয়ে কূলে ফিরে আসছে।
 
 





© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};