ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
593
২৯৭ দিনে কুমিল্লায় ২৪৪ ধর্ষণ
Published : Saturday, 27 October, 2018 at 12:00 AM, Update: 27.10.2018 1:55:53 AM
২৯৭ দিনে কুমিল্লায় ২৪৪ ধর্ষণবশিরুল ইসলাম।।
কুমিল্লার চান্দিনার উষা জুট মিল থেকে কাজ শেষে বাড়ি ফিরছিলেন ষোড়ষী এক তরুণী। বেলা শহর গ্রামের রাস্তায় আসার পর দুই দুর্বৃত্ত তার মুখ চেপে ধরে একটি পরিত্যক্ত ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করে রাস্তার পাশে ফেলে রেখে যায়। পরে অন্য শ্রমিকরা একই রাস্তায় ফেরার পথে তাকে দেখে উদ্ধার  করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। গত ৬ অক্টোবর ঘটে ঐ তরুণীর সাথে এ ঘটনা। শুধু ঐ তরুণীই নয় চলতি মাসের কুমিল্লা জেলায় অন্তত ১৯ জন ধর্ষণের শিকার হয়েছেন। আর চলতি বছরের দশ মাসে মঙ্গলবার পর্যন্ত ধর্ষণের শিকার হয়েছেন ২৪৪ জন। কুমিল্লায় বেড়েছে ধর্ষণের ঘটনা। সেই সাথে বেড়েছে আত্মহত্যার ঘটনাও। উদ্বেগজনক এসব তথ্য পাওয়া গেছে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগ থেকে। ময়নাতদন্ত ও ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ভিকটিমকে সেখানে নেয়া হয়। ফরেনসিক বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের ১০ মাসে নানা কারণে জেলায় ৩৩২ জন আত্মহত্যা করেছেন। একই সময়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গেছেন ৩৭ জন, যাদের মধ্যে ২৫ জন মাদক ব্যবসায় জড়িত বলে অভিযোগ ছিল।
কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগ সূত্র জানায়, চলতি বছরের জানুয়ারী থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত ২৪৪ জনের ডাক্তারি পরীক্ষা করা হায়েছে। তাদের ধর্ষণ করায় হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। গত জানুয়ারী মাসে ২৯ জন, ফেব্রুয়ারীতে ১৫ জন, মার্চে ২৯ জন, এপ্রিলে ৩১ জন, মে মাসে ২০ জন, জুনে ২০ জন, জুলাইয়ে ২৩ জন, আগস্টে ২৬ জন, সেপ্টেম্বরে ৩২ জন, ২২ অক্টোবর  পর্যন্ত  ১৭জন ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষা হয়েছে।
কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা. প্রভাত কুমার বালা জানান, দরিদ্র ও অল্প শিক্ষিত পরিবারের সদস্যদের সামাজিক নিরাপত্তা কম। অন্যদিকে অসামাজিক কার্যকলাপে যারা লিপ্ত হয় তারা তরুণ বেকার যুবক এবং কোন না কোনভাবে মাদকাসক্ত। বিভিন্ন মাধ্যমে ধর্ষনের খবর প্রকাশ ও বিচার না হওয়ায় এরা আরো বেশি সাহসী হচ্ছে বা বেপরোয়া হয়ে পড়ছে। আগের তুলনায় বর্তমানে কম বয়সের শিশুরা ধর্ষিত হচ্ছে। উচ্ছৃংখল তরুণদের মানসিক বৈকল্যতাকে এর জন্য দায়ী করা যায়। সহজ লভ্য পর্ণদৃশ্য তাদেরকে অনুপ্রাণিত করে থাকতে পারে। এক্ষেত্রে অভিভাবকদের সন্তানের প্রতি অধিক যতœবান হতে হবে। তাদেরকে আরো বেশি সময় দিতে হবে। এটা সন্তানকে সুস্থ্য মানুষিক বিকাশে সহায়ক। মা-বাবার সচেতনতাবৃদ্ধি ছোট বাচ্চাদের নিরাপত্তা বৃদ্ধিতে সহায়ক হতে পারে। যুবকদের মাঝে ধর্মীয় রীতিনীতি অনুকরণ এবং পাঠ্য বইয়ে নীতিজ্ঞান মূলক তথ্য আরো বেশি সংযোজন করা প্রয়োজন। ধর্ষিতাদের রক্ষার্থে যথাযথ আইনী প্রয়োগ এ অপরাধ কমাতে সহায়ক ভুমিকা নিতে পারে।
কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসক ডা. শারমিন সুলতানা জানান, ধর্ষণের শিকার হওয়া যাদের ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য আনা হয় তাদের বেশিরভাগেরই বয়স ১৭ থেকে ২০ বছরের মধ্যে। তবে এখন বেশি ভিকটিম আসছে প্রেম সংক্রান্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে হওয়া মামলা সংক্রান্তে। দেখা গেছে মেয়ে এক ছেলের সাথে প্রেম করে পালিয়ে গেছে, অভিভাবকরা মামলা দিয়েছে অপহরণ করে ধর্ষণ অথবা মেয়ের সাথে প্রেম ছিল এখন প্রেমিক আর সম্পর্ক রাখতে চাইছে না। পরে দেখা গেছে ঐ মেয়ে মামলা করেছে। সব ধরনের ভিকটিমই আসে।
আদালত সূত্রে জানা গেছে, ধর্ষণের ঘটনায় প্রতিকার পাওয়ার বিষয়টিও অনেক সময় সাপেক্ষ। ২০০১ সালের ৯ নবেম্বর কুমিল্লার দাউদকান্দিতে এক বিধবাকে ধর্ষণের ঘটনায় ১৬ বছরের বেশি সময় পর গত ৪ জুলাই ধর্ষক কবির হোসেনকে যাবজ্জীবন কারাদ- দিয়েছে কুমিল্লার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল।
কুমিল্লার বিশিষ্ট নাগরিক অধ্যক্ষ আমীর আলী চৌধুরী জানান, ধর্ষণের বিরুদ্ধে গণসচেতনতা তৈরি করতে হবে আর নারীদের আত্মরক্ষার কৌশল রপ্ত করতে হবে। এ জন্য তাদের তায়কোয়ান্দ বা কারাতে শিখতে হবে। এটা খেলা হিসেবে গ্রহণ করে শিখতে হবে। সেই সাথে আদালতেও মামলাগুলোর দীর্ঘসূত্রিতা কমিয়ে আনতে হবে। বছরের পর বছর মামলা পড়ে থাকলে অপরাধীরা সাবধান হয় না, দ্রুত বিচার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিলে তখন ধর্ষণ প্রবণতা কমে আসবে।
তিনি জানান, আত্মহত্যা রোধে সামাজিক সচেতনতা জরুরি। স্কুল বা কলেজে শিক্ষার্থীদের কাউন্সিলিং করাতে হবে। এটা শিক্ষকরা করবে।  সমাজের নানা স্তরেও কাউন্সিলিং করতে হবে। এটা একটি রোগ। জীবনে দু:খ থাকবে, বেদনা থাকবে, হতাশা থাকবে, ব্যর্থতা থাকবে, অনেক চাওয়া পূরণ নাও হতে পারে তাই বলে আত্মহত্যা করতে হবে কেন ? এটা করে লাভ নেই এটি তাদের বুঝাতে হবে।
এ দিকে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগ সূত্র আরো জানায়, একই সময়ে নানা কারণে নিহত ৬৫৮ জনের ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। এদের মধ্যে গুলিতে নিহত ৩৭ জনের মধ্যে ২৫ জন মাদক ব্যবসা বা সংশ্লিষ্টতার কারণে আইন শৃংখলা বাহিনীর সাথে কথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত হয়েছেন। সড়ক দুর্ঘটনা, রেল দুর্ঘটনায় ও অন্যান্য দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া ২৪৮ জনের ময়নাতন্ত করেছে ফরেনসিক বিভাগ। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের ময়নাতদন্ত ও ভিকটিম পরীক্ষার রেজিস্ট্রার্ড বই থেকে জানা গেছে, গত জানুয়ারী থেকে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত বিভিন্ন কারণে ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যার কারণে ময়নাতদন্ত করা হয় ১৩৮ জনের, বিষপানে আত্মহত্যা অভিযোগ ময়নাতদন্ত করা হয় ১৯৪ জনের। জানুয়ারী মাসে ৬১ জন, ফেব্রুয়ারী মাসে ৬৩ জন, মার্চ মাসে ৬৬ জন, এপ্রিল মাসে ৬৪ জন, মে মাসে ৭৯ জন, জুন মাসে ৭০ জন, জুলাই মাসে ৭২ জন, আগষ্ট মাসে ৭২ জন, সেপ্টেম্বর মাসে ৬২ ও অক্টোবর মাসে ( ২২তারিখ পর্যন্ত)  ৪৯ জনের ময়নাতদন্ত করা হয়।


Loading...

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৮
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন, কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ।
ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ই মেইল: [email protected], [email protected],  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ১২২ অধ্যক্ষ আবদুর রউফ ভবন
কুমিল্লা টাউন হল গেইটের বিপরিতে, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : [email protected] Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};