ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন অ্যাপস কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
46
জাঁ পল সার্ত্রে ও সাহিত্যের দায়বদ্ধতা
Published : Monday, 4 December, 2017 at 12:00 AM
দুলাল আল মনসুর ||
১৯৬৪ সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পান ফরাসি দার্শনিক, নাট্যকার, ঔপন্যাসিক, রাজনৈতিককর্মী এবং সাহিত্য সমালোচক জাঁ পল সার্ত্রে। বিশ শতকের ফরাসি দর্শন ও মার্ক্সবাদের  নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের অন্যতম ছিলেন সার্ত্রে।
সমাজবিজ্ঞান, সমালোচনা তত্ত্ব, উপনিবেশ-উত্তর তত্ত্ব এবং সাহিত্য-পাঠসহ বুদ্ধিবৃত্তির সব েেত্র তাঁর প্রভাব পড়েছে। এখনো অনেক েেত্র চলমান আছে তাঁর প্রভাব। ১৯৬৪ সালে নোবেল কমিটি তাঁকে পুরস্কারের জন্য মনোনীত করলেও তিনি নোবেল পুরস্কার গ্রহণ করেননি। নোবেল পুরস্কার গ্রহণ না করার পে তিনি বলেন, ‘আমি সব সময়ই অফিশিয়াল সম্মাননা এড়িয়ে চলেছি। লেখকের উচিত নয় নিজেকে প্রতিষ্ঠানে পরিণত হতে দেয়া। এই দৃষ্টিভঙ্গির ভিত্তি হিসেবে কাজ করেছে আমার লেখকের চেষ্টা-সম্পর্কিত ধারণা। যে লেখক রাজনৈতিক, সামাজিক কিংবা বিশেষ সাহিত্যিক অবস্থানে থাকেন তিনি নিশ্চয়ই তাঁর নিজের মতা অনুযায়ী চলবেন, মানে তিনি নিজে যা লেখেন সে অনুযায়ী।’
সার্ত্রে সারা জীবনই সাহিত্যের উদ্দেশ্য নিয়ে চিন্তা করেছেন। সাহিত্যের সামাজিক দায়বদ্ধতা থাকতে হবে বলে মনে করতেন তিনি।
সে ধারণার পে অবস্থান নেওয়ার জন্যই তিনি সাহিত্যের আরেক পবিত্র দায়িত্ব পালনের প্রসঙ্গ ত্যাগ করতে পেরেছিলেন। সাহিত্যের সে পবিত্র দায়িত্ব হলো, সাহিত্য ধর্মের পুরনো বিশ্বাসের খালি জায়গাটা পূরণ করতে পারে। তবে সাহিত্যের উদ্দেশ্য ও বাস্তব মতা সম্পর্কে তাঁর হতাশাও ছিল। এ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘অনেক দিন ধরেই আমার কলমকে তরবারি মনে করেছি। এখন বুঝতে পারি, কতটা অম আমরা।’ তাঁর মতো অডেনও বলেছিলেন, সমাজ পরিবর্তনের মতা কবিতার নেই। সার্ত্রে বলেন, ‘রাজনৈতিক দিক থেকে দায়বদ্ধ হলেও সাহিত্যের খুব জোরালো কিছু করার মতা নেই। নোবেল পুরস্কার আসলে পশ্চিমের লেখকদের জন্য অথবা প্রাচ্যের বিদ্রোহীদের জন্য। ’
সাত্রের বয়স দুই বছরের সময় তাঁর বাবা মারা যান। তাঁর ছেলেবেলার শিার প্রথম দিকনির্দেশনা পান নানার কাছ থেকে। তিনি সার্ত্রেকে গণিত পড়াতেন এবং কাসিক সাহিত্যের সঙ্গেও পরিচয় করিয়ে দেন। ১৯২০-এর দশকে কিশোর বয়সে ফরাসি দার্শনিক হেনরি বার্গসনের ‘টাইম অ্যান্ড ফ্রি উইল : অ্যান এসে অন দি ইমিডিয়েট ডেটা অব কনশাসনেস’ পড়ে দর্শনের প্রতি আকৃষ্ট হন সার্ত্রে। সাত্রের দার্শনিক মানসিক গঠনে বড় ভূমিকা রাখেন যাঁরা, তাঁদের মধ্যে রাশিয়ায় জন্ম নেওয়া ফরাসি দার্শনিক আলেক্সান্ডার কোজেভ অন্যতম। সার্ত্রে কোজেভের সাপ্তাহিক সেমিনারে নিয়মিত উপস্থিত থাকতেন। সাত্রের দীর্ঘদিনের বন্ধু রেমন্ড আরনও ছিলেন দার্শনিক। তাঁর সঙ্গে বন্ধুত্বের কারণেও সাত্রের দার্শনিক মানস নানাভাবে উৎসাহিত হয়েছে। ১৯৩২ সালে সার্ত্রে ফরাসি সাহিত্যের আধুনিক শৈলীর পথিকৃৎ লেখক লুই-ফার্দিনান্দ  সেলিনের উপন্যাস ‘জার্নি টু দি অ্যান্ড অব নাইট’ পড়েন। উপন্যাসটি তাঁর ওপরে সুদূরপ্রসারী প্রভাব ফেলে। ১৯৩০-এর দশকে আলেক্সান্ডার কোজেভ এবং জাঁ হিপোলিতার নেতৃত্বে নব্য-হেগেলীয় পুনর্জারণ ঘটে। এই জাগরণ সার্ত্রের প্রজন্মের ফরাসি চিন্তাবিদদের উদ্দীপনা জোগায়। সাত্রের ওপর প্রভাব বিস্তারী দার্শনিকদের অন্যতম ছিলেন জার্মান দার্শনিক মার্টিন হাইদেগার। বলা হয়ে থাকে, সাত্রের ‘বিইং অ্যান্ড নাথিংনেস’ হলো হাইদেগারের ‘বিইং অ্যান্ড টাইম’-এর প্রতিক্রিয়া। সাত্রের ওপরে ফরাসি দার্শনিক দেকার্তের প্রভাবও স্পষ্ট। সাত্রের অস্তিত্ববাদের প্রারম্ভেই দেখতে পাওয়া যায় তাঁর সাদৃশ্য রয়েছে দেকাতের দর্শনের সঙ্গে।
মানুষের স্বাধীনতার ধারণার পেছনে অনেক সময় ব্যয় করেন সার্ত্রে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষের দিকে তিনি গণমানুষের বিভিন্ন কাজকর্মে অংশগ্রহণ করেন। যুদ্ধের আগে তিনি ছিলেন রাজনীতি নিরপে উদারনৈতকি বুদ্ধিজীবী। যুদ্ধের আগের সার্ত্রের সঙ্গে মিল পাওয়া যায় তাঁর ‘দি এইজ অব রিজন’-এর প্রধান চরিত্রের সঙ্গে : নিজের অস্তিত্ব ছাড়া আর কিছুতে যার দায়-দায়িত্ব নেই। এই চরিত্রের মতো সাত্রেরও দায়বদ্ধতার ঘাটতি ছিল যুদ্ধের আগে। যুদ্ধের নৃশংসতা দেখে গণমানুষের পে দাঁড়ানোর মতো মানসিকতা তৈরি হয়ে যায় তাঁর মধ্যে। এভাবেই তাঁর জীবনের মোড় ঘুরে যায়। আর একুশ শতকের মানুষের জীবনেও সাত্রের প্রাসঙ্গিকতা রয়েছে। তাঁর সারা জীবনের বুদ্ধিবৃত্তিক সংগ্রাম ও তাঁর লেখা এখনো পুরনো হয়নি।



Loading...

সর্বশেষ সংবাদ
সর্বাধিক পঠিত
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৬
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
কার্যালয়: কাজী অহিদুজ্জামান ম্যানশন, তৃতীয় তলা, কান্দিরপাড়,কুমিল্লা-৩৫০০, বাংলাদেশ
ফোন: +৮৮০ ৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২৪৪৩, +৮৮০ ১৭১৮০৮৯৩০২
ই মেইল: hridoycomilla@yahoo.com, newscomillarkagoj@gmail.com,  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ কাজী অহিদুজ্জামান ম্যানশান।
তৃতীয় তলা, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : hridoycomilla@yahoo.com Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};