ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন অ্যাপস কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
77
স্বল্পতম ব্যয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদনে নজর দিতে হবে
Published : Monday, 9 October, 2017 at 12:00 AM
স্বল্পতম ব্যয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদনে নজর দিতে হবেসম্প্রতি বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি) প্রতি ইউনিট পাইকারি বিদ্যুতের দাম গড়ে ৭২ পয়সা বৃদ্ধির প্রস্তাব করেছে এবং তা ৫৭ পয়সা বৃদ্ধির পক্ষে মত দিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিইআরসির কারিগরি কমিটি। এদিকে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ সংগঠন কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) মনে করে, কম খরচে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সুযোগ থাকা সত্ত্বেও বেশি দামে বিদ্যুৎ উৎপাদন করছে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড (পিডিবি)। দেখা যাচ্ছে, সরকার কমদক্ষ এবং বেসরকারি রেন্টাল বিদ্যুতে গ্যাস দিয়ে বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি করছে। অথচ পিডিবির বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলি গ্যাসের অভাবে অপেক্ষাকৃত কম খরচে বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারছে না। এ ব্যাপারে কেউ কেউ মনে করেন, প্রভাবশালী ও ব্যবসায়ীদের একটি গোষ্ঠীর স্বার্থ রক্ষা করতে গিয়ে জনগণের উপর খরচের বোঝা চাপাচ্ছে। দেখা যাচ্ছে, পিডিবি স্বল্পতম ব্যয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদন কৌশল গ্রহণ না করার ফলে ভোক্তারা বছরে ৭ হাজার ৮৪৩ কোটি ৮৩ লক্ষ টাকা ক্ষতির শিকার হচ্ছে। অথচ স্বল্পতম ব্যয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদিত হলে প্রতি ইউনিট পাইকারি বিদ্যুতের দাম এক টাকা ৩২ পয়সা পর্যন্ত হ্রাস করা সম্ভব। এমনটি বলছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ সংগঠন ক্যাব।

অন্যদিকে দেশে বিনিয়োগ বৃদ্ধির ক্ষেত্রে সবচাইতে বড় বাধা হল গ্যাস ও বিদ্যুতের সংকট। বর্তমানে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে শিল্প স্থাপন করতে চায় উদ্যোক্তারা। ফলে যে কোনো শিল্প স্থাপন করতে গেলে বিদ্যুতের প্রয়োজন। কিন্তু এটা চাহিদা অনুযায়ী পাওয়া যাচ্ছে না বিধায় নিজস্ব জেনারেটরে উৎপাদিত বিদ্যুৎ ব্যবহার করতে হয়। আবার যতটুকু বিদ্যুৎ পাওয়া যায়, তা উচ্চমূল্যে ক্রয় করতে হয়, ফলে বৃদ্ধি পাচ্ছে উৎপাদন খরচ। এতে তারা পিছিয়ে পড়ছেন রফতানি প্রতিযোগিতায়। অন্যদিকে, নূতন বিনিয়োগেও আস্থা রাখতে পারছেন না উদ্যোক্তারা। তাতে ক্ষতি হচ্ছে কর্মসংস্থান খাত সমেত সার্বিক অর্থনীতির। দেশে বর্তমানে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা রয়েছে ১৫ হাজার মেগাওয়াট। এর মধ্যে সর্বোচ্চ উৎপাদন হয়েছে ২০১৬-১৭ অর্থবছরের মে মাসে, ৯ হাজার ৩৫৬ মেগাওয়াট। অন্য সময়ে গড় উৎপাদন সাড়ে সাত থেকে আট হাজার মেগাওয়াট। অথচ চাহিদা রয়েছে ১০ হাজার থেকে ১২ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতের। তাছাড়া প্রতিবছর ১০ শতাংশ হারে বিদ্যুৎ চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এভাবে চাহিদা বাড়তে থাকলে ২০২১ সাল অবধি বিদ্যুতের চাহিদা হবে ৩০ হাজার মেগাওয়াট। এদিকে, ২০১৫ সালে ৭ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় সবার ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার পরিকল্পনা নিয়েছিল সরকার। ২০২০ সালের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ২৩ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের।

মনে রাখতে হবে, বিদ্যুৎ এমন একটি কৌশলগত পণ্য যার মূল্যবৃদ্ধি ঘটলে অন্য সকল পণ্যের উৎপাদন খরচ বেড়ে যায়। ফলে এতে দুইটি বিশেষ প্রতিক্রিয়া ঘটে। একটি হল মুদ্রাস্ফীতি, যাতে জনগণের প্রকৃত আয় কমে যায়। অন্যটি পণ্যের উৎপাদন খরচ বৃদ্ধি। সুতরাং আগামীতে নতুন করে পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনার সময় প্রয়োজনীয় বিদ্যুৎ যাতে স্বল্পতম ব্যয়ে উৎপাদন করা সম্ভব হয়, সেদিকে সর্বাগ্রে নজর দিতে হবে।

 



 




© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৬
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
কার্যালয়: কাজী অহিদুজ্জামান ম্যানশন, তৃতীয় তলা, কান্দিরপাড়,কুমিল্লা-৩৫০০, বাংলাদেশ
ফোন: +৮৮০ ৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২৪৪৩, +৮৮০ ১৭১৮০৮৯৩০২
ই মেইল: hridoycomilla@yahoo.com, newscomillarkagoj@gmail.com,  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ কাজী অহিদুজ্জামান ম্যানশান।
তৃতীয় তলা, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : hridoycomilla@yahoo.com Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};