ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন অ্যাপস কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
49
বাঙালনামা
Published : Monday, 11 September, 2017 at 12:00 AM, Update: 11.09.2017 2:08:03 PM
বাঙালনামানীলাভ্র ব্যানার্জী ||
পর্ব-১
পেন নিয়েই দু চার কথা বলে ফেলি? বক্কম্ বাজ মানুষ আমি, নিজেকেই নিজে চ্যালেঞ্জ করে বসলাম পেন নিয়ে লেখ এবারে, একটা জোক অন্তত বল? অবাক কা-, পেন নিয়ে কোনো জোক তো সত্যি শুনিনি। সত্যি কি শুনিনি? 
সাউথ পয়েন্ট স্কুলের অঙ্কের স্যার ছিলেন আশুবাবু। তাঁকে নিয়ে একটা কাশে জোক চলত। বাঙ্গাল ছিলেন, পেন কে প্যান বলতেন। তা কোনো এক কাশে উনি বলেছিলেন
‘ছেলেরা সব প্যান্টা খোলো, কাম টা কর,মেয়েরা সব করে ফেলল’।
স্কুলের টিনেজ বাচ্চারা তাতে খুব পানু পানু গন্ধ পেয়ে জোক বানিয়ে দিল। তারপরে কয়েক দশক ধরে একই জোক ঘুরছে।
সেরকম পাঠ ভবনে কে জানি লিখে ছিল ঢ়বহরং ধ ঢ়ড়বিৎভঁষ ঃড়ড়ষ. তা এটাও একটা পানু জোক হয়ে গেল। এই অবধিই। পেন নিয়ে আর কেউ জোক শুনায়নি ।
আমাদের কালে কাস ফাইভে উঠলে আরটেক্স পেন দিয়ে লেখা শুরু হত। সস্তার ফাউন্টেন পেন, লিক করে বুড়ো আঙ্গুল নীল করে দিত, দিব্যি কালি মাথায় মুছে লিখে যেতাম। যারা বড় লোকের ছেলে মেয়ে তারা ফস ফস করে উইং সাং পেন দিয়ে লিখত।
বাড়ি এসে বাবা কে একদিন বললাম , -‘বাবা উইং সাং কি খুব দামি পেন ?’
বাবা বললেন, - ‘ধুর পাগল, ওটা চাইনিজ পেন, দামি পেন হল শেপার্ড , পার্কার। ’
আমি বললাম, - ‘বাবা একটা দাও না কিনে ?’
বাবা বললেন , - ‘বড্ড দাম, তবে দেব একদিন।’
তারপরে একদিন পাড়ার বইখাতার দোকান থেকে পার্কারের ০.৫ সস জেল পেন কিনে মহা বীর দর্পে বাড়ি ঢুকে দেখালাম বাবা’কে, বাবা পার্কার পেন ।
বাবা বললেন, - ‘ধুর পাগল, এটা জেল পেন, ফাউন্টেন পেনের অনেক দাম। ফাউন্টেন পেনের কি এমন দাম হতে পারে ?’
ওই তো একটা নিব, মাথা টা চেরা, আর্টেক্সের নিবের মাথা আমরা ব্লেড দিয়ে একটু বেশি চিরে দিতাম, তাতে কালির ফো বেশি হতো ।
আর উইং সাং কেমন টেপা কল ছিল, তা দিয়ে কালি টেনে নেয়া যেত দিব্যি, আমরা যারা আর্টেক্স ব্যবহার করতাম, আমাদের কে অবশ্য পেন এর পেট খুলে কালি ভরতে হত, মাঝে মাঝে দোয়াৎ থেকে কালি বেঞ্চে পড়ে যাতা কা- ।
জিকে কাসে এর মধ্যে জানলাম, পেন আবিস্কার করেছে ওয়াটারম্যান সাহেব। ভক্তিতে গদগদ হয়ে গেলাম, এই মহান আবিস্কর্তার আবিস্কারে ।
অবশ্য কাস সেভেনে উঠতেই হাতে এল বল পয়েন্ট পেন। তারপরে আর ফাউন্টেন পেন ধরে কে। তারপর থেকে পেন নিয়ে মাতামাতি থিতিয়ে এল, পেন দিয়ে শুধুই লিখতাম, কালি শেষ হলে ফেলে দিতাম। আস্তে আস্তে বড় হচ্ছিলাম, একদিন মাধ্যমিক দিলাম, ভালো রেজাল্ট করায়, রূপোর পেন পেলাম, খুলেও দেখিনি। থাকলো শোকেসে সাজানো।
তারপরে আরো কিছু বছর বাদে দিদি জামাইবাবু একদিন পেন প্রেজেন্ট করলো, সোনার নিব ওয়ালা পার্কার। অনেকদিন বাদে আবার সেই কলমের জন্যে কালি কিনতে দৌড়ালাম।
সুলেখা কম্পানি উঠে গেছে বহুদিন, চেলপার্কও নেই। ক্যামেল কম্পানির কালি কিনে পার্কার পেনে ভরে দু’কলম লিখে ফেললাম। তবে খসখস করছিল। সেই পুরনো দিনের আর্টেক্সের মাখন ফিলিংটা নেই। 
এরপরে বহুদিন পেন নিয়ে নিরুত্তাপ ছিলাম, কয়েক দশক। হঠাৎ একদিন এক বিদেশি এয়ারপোর্টে অস্ট্রেলিয়ান আমার কাছে বিক টা চাইল, বুকপকেটে তাকিয়ে দেখলাম আমার বলপয়েন্ট পেন। ও অস্ট্রেলিয়ায় বলপেন’কে বিক বলে বুঝি ?
হুম, বিক কম্পানির পেন তো এখনো বিক্রি হয় বাজারে ।
এতো আমাদের ফটোকপি কে জেরক্স বলার মতো ব্যাপার। 
তা যা হোক, পেন নিয়ে পড়াশুনা শুরু করলাম। প্রথমেই ধাক্কা, ওয়াটারম্যান সাহেবের অনেক শতাব্দী আগেই বাজারে ফাউনটেন পেন চলছে। তার ও বহু শতাব্দী আগে থেকে চলছিল ডিপ পেন, যাতে কলমে কালি জমিয়ে রাখার ব্যবস্থা ছিল না, কলম চুবিয়ে চুবিয়ে লিখতে হত। এই করতে করতে সংগ্রহে পেন বাড়তেও লাগল।
ডিপ পেন থেকে , ফেদার পেন সংগ্রহ হল, সোয়ান ফেদার, অস্ট্রিচ ফেদার। তারপরে ক্যালিগ্রাফির নেশা ধরল, নানা থিকনেস এর ডিপ পেন কিনতে লাগলাম। 
এর মধ্যে দাদার মেয়েটা একদিন দেখি হাতে আর্টেক্স নিয়ে কালিঝুলি মেখে লিখছে। এসে বলল, - ‘আচ্ছা আমাকে একটা পেছনে ড্রপার লাগানো চাইনিজ পেন কিনে দেবে? ’
বললাম, - ‘হ্যাঁ দেব,’ তবে চাইনিজ না, শেফার্ড, প্যালাডিয়ামের নিব, লাপিজ লাজুলির বডি, তাতে সোনা দিয়ে ওর নাম লেখা ।
দাদা বলল, - ‘এটা কি কিনে দিলি এত দামি?’
আমি বললাম, - ‘এটা আমার ছোটবেলার স্বপ্ন, এখন আমার কাছে এর প্রয়োজন ফুরিয়েছে, কিন্তু ওর কাছে থাকবে এখন বহুদিন, ব্যবহার করুক, বুক পকেটে ঝুলিয়ে ঘুরে বেড়াক, আমি যেরকম স্বপ্নে চেয়েছিলাম।’
লেখক: পিএচডি গবেষক, গ্লাসগো, স্কটল্যান্ড। 



© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৬
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
কার্যালয়: কাজী অহিদুজ্জামান ম্যানশন, তৃতীয় তলা, কান্দিরপাড়,কুমিল্লা-৩৫০০, বাংলাদেশ
ফোন: +৮৮০ ৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২৪৪৩, +৮৮০ ১৭১৮০৮৯৩০২
ই মেইল: hridoycomilla@yahoo.com, newscomillarkagoj@gmail.com,  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ কাজী অহিদুজ্জামান ম্যানশান।
তৃতীয় তলা, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : hridoycomilla@yahoo.com Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};