ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন অ্যাপস কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
344
প্রফেসর লায়লা নূর বললেন- সংস্কৃতির প্রথম শর্ত ভদ্রতা
Published : Saturday, 12 August, 2017 at 12:00 AM, Update: 12.08.2017 1:33:45 AM
প্রফেসর লায়লা নূর বললেন- সংস্কৃতির প্রথম শর্ত ভদ্রতামোতাহার হোসেন মাহবুব।।
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ইংরেজি বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষক ও ভাষাসংগ্রামী প্রফেসর লায়লা নূর বলেছেন, ‘সংস্কৃতি’ শব্দটির ব্যাপকতা নির্ধারণ এক কিংবা একাধিক বাক্যে সম্ভব নয়। গুণীজন-বিশ্লেষকগণ বিভিন্নভাবে এ শব্দটিকে উপস্থাপন করেছেন। আমাদের ইতিহাস-ঐতিহ্য-এর ধারাবাহিকতা এবং এর বিঘœতা নিয়ে প্রচুর লেখালেখি-আলোচনা হয়েছে। প্রকৃত অর্থে, সংস্কৃতির প্রথম শর্তই ভদ্রতা। আমি যদি মানুষের সাথে আচার-আচরণই ঠিকমত করতে না পারি তাহলে সংস্কৃতি চর্চা করে কোনো লাভ হবে না। ক’দিন আগে কুমিল্লা মহানগরের প্রফেসর পাড়ায় তাঁর ঘরের বিছানায় বসে তিনি একথাগুলো বলেছেন।  
প্রফেসর লায়লা নূরের বড় বোন উম্মে কুলসুম গুলনার নূর যেদিন মারা গেলেন সেদিন বেলা ১১টায় প্রফেসর লায়লা নূরের শারীরিক অবস্থা জানার জন্য বাসায় গেলে কথা প্রসঙ্গে তিনি একথা বলেন। গত ২৮ জুলাই বিকেল সাড়ে ৪টায় উম্মে কুলসুম গুলনার নূর মুন হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। তিনি ছিলেন ৩ বোনের মধ্যে সবার বড় বোন।
ওই দিন প্রফেসর লায়লা নূর বলেছিলেন, আমার দিদি উম্মে কুলসুম গুলনার নূর মুমূর্ষ অবস্থায় মুন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। প্রফেসর লায়লা নূর অনেকটা অভিযোগের সুরে বলেন, আসলে দিদিকে একটি চক্র আমাদের পরিবার থেকে দূরে সরিয়ে রেখেছে। আমি দিদির খোঁজ নিতে বহু চেষ্টা করেছি, পাইনি। যখন সংবাদ পেলাম তখন তিনি গুরুতর অসুস্থ। আমার শারীরিক অবস্থা ভালো না। কুমিল্লা শহরের রাস্তাঘাটের যে অবস্থা তাতে হাসপাতালে গিয়ে দিদিকে দেখে আসবো যে ভরসা পাচ্ছি না।
উম্মে কুলসুম গুলনার নূরকে দাফন করা হয় টমছমব্রীজ কবরস্থানে। অসুস্থতার কারণে প্রফেসর লায়লা নূর তাঁর দিদিকে শেষ দেখা দেখতে পারেন নি। তাঁর ছোট বোন নিলুফার নূরও বেঁচে নেই। তিন বোন এক ভাইয়ের মধ্যে এখন প্রফেসর লায়লা নূর ও একভাই বেঁচে আছেন।
প্রফেসর লায়লা নূর কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার গাজীপুর গ্রামে ১৯৩৬ সালের ৫ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম আবু নাসের মোহাম্মদ নূর উল্লাহ। তিনি ভারতের টাটা আইরন অ্যান্ড স্টীল কোম্পানীর ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন। লায়লা নূর ১৯৪৮ সালে ম্যাট্রিক, ১৯৫০ সালে আইএ, ১৯৫২ সালে ¯œাতক এবং ১৯৫৫ সালে ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্যে ¯œাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।
লায়লা নূরের লেখায় একটি ব্যক্তিত্ব-প্রকাশক স্টাইল আছে। সহজ, সুন্দর এবং প্রতিভাদীপ্ত। তাঁর কথা বলারও একটি আলাদা স্টাইল আছে, মার্জিত এবং রুচিবোধ সম্পন্ন।
প্রফেসর লায়লা নূর অগ্নিযুগের অগ্নিকন্যা। তিনি বাংলা ভাষা আন্দোলন-উত্তর ১৯৫৫ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী থাকাকালীন ২১ দিনের মতো জেল খেটেছিলেন। গুনী এ মানুষটিকে আমরা ক’জন মনে রেখেছি?





© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৬
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
কার্যালয়: কাজী অহিদুজ্জামান ম্যানশন, তৃতীয় তলা, কান্দিরপাড়,কুমিল্লা-৩৫০০, বাংলাদেশ
ফোন: +৮৮০ ৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২৪৪৩, +৮৮০ ১৭১৮০৮৯৩০২
ই মেইল: hridoycomilla@yahoo.com, newscomillarkagoj@gmail.com,  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ কাজী অহিদুজ্জামান ম্যানশান।
তৃতীয় তলা, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : hridoycomilla@yahoo.com Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};