ই-পেপার ভিডিও ছবি বিজ্ঞাপন অ্যাপস কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স কুমিল্লার ইতিহাস ও ঐতিহ্য লাইভ টিভি লাইভ রেডিও সকল পত্রিকা যোগাযোগ কুমিল্লার কাগজ পরিবার
Count
136
ত্রাণ নিয়ে দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়ান
Published : Saturday, 15 July, 2017 at 12:00 AM
ত্রাণ নিয়ে দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়ানদেশের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। উজানের ঢল ও টানা বর্ষণে মানুষের দুর্দশা বেড়েছে। ছোট-বড় সব নদীতে পানি বাড়ছে। প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। কয়েকটি নদীর পানি সামান্য কমলেও নদীর তীরবর্তী এলাকায় দেখা দিয়েছে ভাঙন। উত্তরের পানি মধ্যাঞ্চলে নেমে এলে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হতে পারে বলে আশঙ্কা রয়েছে। দেশের পূর্বাঞ্চলে সিলেট, মৌলভীবাজার ও সুনামগঞ্জের বন্যা স্মরণকালের মধ্যে দীর্ঘস্থায়ী হতে যাচ্ছে বলেও বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা। বন্যাকবলিত এলাকায় বিশুদ্ধ পানির অভাব দেখা দিয়েছে। খাদ্য ও নিরাপদ পানির সংকট বানভাসি মানুষের দুর্দশা আরো তীব্র করে তুলেছে। পানিবাহিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে দুর্গতরা। ওদিকে আগাম বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হাওরের ফসলহারা কৃষকদের জন্য নেওয়া সরকারি সহায়তা ধীরে ধীরে ফুরিয়ে আসছে। বন্ধ হয়ে গেছে খোলাবাজারে চাল বিক্রি কার্যক্রম। এ মাসের শেষের দিকে বন্ধ হয়ে যাবে প্রান্তিক, দরিদ্র ও ক্ষুদ্র চাষিদের জন্য নেওয়া বিশেষ ভিজিএফ কার্যক্রমও। ফলে সেখানেও দেখা দেবে তীব্র অভাব-অনটন।   
বন্যাকবলিত এলাকার দুর্গত মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে উঁচু জায়গায় আশ্রয় নিয়েছে। অনেকে উঠেছে ত্রাণ শিবিরে। এসব এলাকায় ত্রাণ সরবরাহ এখন পর্যন্ত পর্যাপ্ত নয় বলে অভিযোগ রয়েছে। পরিবার-পরিজন নিয়ে অনেককেই অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটাতে হচ্ছে। বাড়িঘর হারিয়ে অনেকে স্থায়ীভাবে উদ্বাস্তু হয়ে যেতে পারে বলেও আশঙ্কা রয়েছে। বন্যার কারণে দেশের বিভিন্ন স্থানে যে বিপর্যয় দেখা দিয়েছে তাকে শুধুই প্রাকৃতিক দুর্যোগ বলার কোনো কারণ নেই। অতিবৃষ্টি, পাহাড়ি ঢল নতুন কিছু নয়। প্রতিবছরই বন্যা আসে প্রাকৃতিক নিয়মে। কিন্তু দেশের নদ-নদীগুলোর এখন যে অবস্থা, তাতে অতিরিক্ত পানি প্রবাহিত হয়ে সাগরে চলে যেতে পারছে না। বেশির ভাগ নদী ভরাট হয়ে গেছে। দীর্ঘদিন ড্রেজিং না হওয়ায় এবং গভীরতা হ্রাস পাওয়ায় পানি ধরে রাখার ক্ষমতা হারিয়েছে অনেক নদী। সে কারণে যতই দিন যাচ্ছে বন্যার স্থায়িত্ব ও ভয়াবহতা বাড়ছে। খননের মাধ্যমে নদীগুলোর গভীরতা বাড়ানোর উদ্যোগ না নিলে ভবিষ্যতে এই ভয়াবহতা আরো বাড়বে, পলি পড়ে নদী আরো ভরাট হবে। অবিলম্বে নদী খননের ব্যবস্থা না নিলে আগামী দিনেও এ দুর্যোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে না। বন্যা নিয়ন্ত্রণে এখনই স্থায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে।
আপাতত দাঁড়াতে হবে বন্যাদুর্গত মানুষের পাশে। পর্যাপ্ত ত্রাণের ব্যবস্থা করতে হবে। বন্যাকবলিত এলাকায় পানিবাহিত রোগ যাতে ছড়িয়ে পড়তে না পারে সে জন্য প্রয়োজনীয় ওষুধসহ মেডিক্যাল টিম পাঠাতে হবে। ভাঙন রোধে এখনই স্থায়ী কোনো ব্যবস্থা না নিলে মানুষের দুর্গতি আরো বাড়বে। আমরা আশা করব, বন্যাদুর্গতদের ত্রাণ ও পুনর্বাসনে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি ও সামাজিক সংস্থাগুলোও উদ্যোগী হবে।




© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
কুমিল্লার কাগজ ২০০৪ - ২০১৬
সম্পাদক ও প্রকাশক : মোহাম্মদ আবুল কাশেম হৃদয় (আবুল কাশেম হৃদয়)
নির্বাহী সম্পাদক: হুমায়ূন কবীর জীবন
কার্যালয়: কাজী অহিদুজ্জামান ম্যানশন, তৃতীয় তলা, কান্দিরপাড়,কুমিল্লা-৩৫০০, বাংলাদেশ
ফোন: +৮৮০ ৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২৪৪৩, +৮৮০ ১৭১৮০৮৯৩০২
ই মেইল: hridoycomilla@yahoo.com, newscomillarkagoj@gmail.com,  Developed by i2soft
সম্পাদক ও প্রকাশকঃ আবুল কাশেম হৃদয়
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ কাজী অহিদুজ্জামান ম্যানশান।
তৃতীয় তলা, কান্দিরপাড়, কুমিল্লা ৩৫০০। বাংলাদেশ। ফোন +৮৮ ০৮১ ৬৭১১৯, +৮৮০ ১৭১১ ১৫২ ৪৪৩
ইমেইল : hridoycomilla@yahoo.com Developed by i2soft
document.write(unescape("%3Cscript src=%27http://s10.histats.com/js15.js%27 type=%27text/javascript%27%3E%3C/script%3E")); try {Histats.start(1,3445398,4,306,118,60,"00010101"); Histats.track_hits();} catch(err){};